ভারত থেকে বাংলাদেশে ফেরার সময় এক বাংলাদেশি ব্যক্তির কাছ থেকে উদ্ধার হল ভারতের ঠিকানার আধার কার্ড। মঙ্গলবার বিকেলে শিলিগুড়ি কমিশনারেটের এনজেপি থানার ফুলবাড়ি সীমাম্তের ঘটনা। এ দিন সীমান্তে ওই ব্যক্তির নথিপত্র পরীক্ষা করছিলেন শুল্ক দফতরের অফিসারেরা। তাঁর সঙ্গের জিনিসপত্র পরীক্ষা করার সময় আধার কার্ডটি উদ্ধার হয়। জেরার পরে রাতে শুল্ক দফতরের অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ। 

ধৃতের নাম অবিনাশ চন্দ্র সিংহ। বুধবার সকালে অভিযুক্তকে জলপাইগুড়ি জেলা আদালতে তুলে নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ। শিলিগুড়ির ডিসি (পূর্ব) গৌরব লাল বলেন, ‘‘অভিযুক্তের বাংলাদেশি পাসপোর্ট ও নথিপত্রের সঙ্গে ওই আধার কার্ডটি ছিল। মাঝেমধ্যেই তিনি শিলিগুড়ি আসেন। ভুয়ো কার্ড সম্পর্কে সদুত্তর দিতে পারেননি।’’ ডিসি জানান, শিলিগুড়িতে কোথাও ওই ভুয়ো কার্ডের চক্র কাজ করছে। অভিযুক্ত কোথা থেকে তা পেয়েছিল তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ধৃতের বাড়ি বাংলাদেশের ঠাঁকুরগাওতে। বছর ২০-২২এর অবিনাশ সীমান্তের বিভিন্ন সরবরাহকারী সংস্থার কাজকর্ম করত। পুলিশের দাবি, বাংলাদেশে নানা ধরণের ছোট ব্যবসাও রয়েছে তাঁর। কাজের সুবাদেই তিনি নিয়মিত ফুলবাড়ি দিয়ে এদেশে আসেন। মাস দশেক আগে ভারতে এসে নেপাল সীমান্তের নকশালবাড়ি, খড়িবাড়িতে তিন মাস ছিলেন। জেরায় ধৃত জানিয়েছে, তিনি এক পরিচিতের বাড়িতে ছিলেন। সেটিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। উদ্ধার হওয়া আধার কার্ডটি শিলিগুড়ির একটি ঠিকানা দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। ধৃত নিজেকে ভারতীয় পরিচয় দিয়ে কোনও কাজ করার চেষ্টা করছিল বলে তদন্তকারীদের অনুমান। তবে বরাবরই অভিযুক্ত বাংলাদেশ বা নেপাল সীমান্ত এলাকায় কেন ঘাঁটি করছিল তা নিয়েও খোঁজ শুরু হয়েছে। গত জুনে শিলিগুড়ি়র সেবক রোডের দুই মাইল এলাকা থেকে এক চিনা ও এক নেপালের নাগরিককে গ্রেফতার করা হয়। তাদের থেকেও ভুয়ো পরিচয়, ঠিকানা দিয়ে নকল আধার কার্ড উদ্ধার হয়েছিল।