• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ফিরেই বাড়িতে নিভৃতবাস দেবশ্রীর

 Debasree Chaudhuri
ছবি: সংগৃহীত।

এর আগে তাঁর বিরুদ্ধে লকডাউন ও সামাজিক বিধি অমান্য করে বাসিন্দাদের মাস্ক বিলির অভিযোগ উঠেছিল। এ বারে দিল্লি থেকে রায়গঞ্জে ফিরেই সাত দিনের হোম কোয়রান্টিনে গেলেন বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় নারী ও শিশুকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী। দলীয় সূত্রের খবর, বিমানে বাগডোগরায় নামার পরে ছোটগাড়িতে চেপে বুধবার রাতে রায়গঞ্জের সুদর্শনপুরে ভাড়া করা ফ্ল্যাটে ওঠেন দেবশ্রী। এই সাত দিন তিনি দলীয় নেতা, কর্মী ও বাসিন্দাদের সঙ্গে দেখাও করছেন না। বস্তুত, শুক্রবার উত্তর দিনাজপুরের বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা পরীযায়ী শ্রমিকদের দেবশ্রীর সঙ্গে দেখা করে কাজের দাবিতে স্মারকলিপি দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু দেবশ্রী তাঁদের ফোন করে কার্যালয়ে না আসার অনুরোধ করেন।

দেবশ্রী বলেন, “এই সময়ে কোনও বাসিন্দা আমার সঙ্গে দেখা করতে এলে কার্যালয়ের কর্মীদের মাধ্যমে তাঁদের বুধবারের পরে আসার জন্য বলছি। পরিযায়ী শ্রমিকদেরও ফোন করে অনুরোধ করেছি কার্যালয়ে না এসে ইমেলের মাধ্যমে আমাকে স্মারকলিপি পাঠাতে।”

বস্তুত, এর আগে ২ এপ্রিল বাইরে থেকে এসে লকডাউন ও সামাজিক দূরত্ববিধি অমান্য করে দলীয় নেতা ও কর্মীদের নিয়ে রায়গঞ্জ শহরের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে বাসিন্দাদের মধ্যে মাস্ক বিলির অভিযোগ ওঠে দেবশ্রীর বিরুদ্ধে। কংগ্রেস ও তৃণমূলের তরফে পুলিশ ও প্রশাসনের কাছে দেবশ্রীর বিরুদ্ধে লিখিত ভাবে ওই অভিযোগ জানানো হয়। পরের দিন দেবশ্রীর বিরুদ্ধে তাঁর ফ্ল্যাটে স্বাস্থ্যকর্মীদের হোম কোয়রান্টিনের পোস্টার লাগাতে বাধা দেওয়ারও অভিযোগ ওঠে। যদিও দেবশ্রী ওই অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন।

অন্য দিকে, বৃহস্পতিবার রাতে রায়গঞ্জ মেডিক্যালে লালারস পরীক্ষায় নতুন করে ১৩ জনের করোনা সংক্রমণের হদিস মিলেছে। এই নিয়ে জেলায় আক্রান্ত বেড়ে দাঁড়াল ৩৭৬ জন। হাসপাতালের অধ্যক্ষ দিলীপ পালের কথায়, “ওই ১৩ জন বাসিন্দা কয়েক দিন আগে জ্বরের উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালের ফিভার ক্লিনিকে এসেছিলেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাঁদের লালারস সংগ্রহ করে পরীক্ষার ব্যবস্থা করেন।”

জেলা স্বাস্থ্য দফতরের দাবি, আক্রান্ত ওই ১৩ ব্যক্তিকে রায়গঞ্জের কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করানোর কাজ শুরু হয়েছে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন