ইস্তফা দিয়েছেন চিকিৎসক। যার জেরে আড়াই মাসের বেশি সময় ধরে বন্ধ আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালের আলট্রাসোনোগ্রাফি (ইউএসজি) বিভাগ। ফলে প্রতিদিনই দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে প্রচুর রোগীকে। অভিযোগ, এপ্রিল মাসের শুরু থেকে হাসপাতালের আলট্রাসোনোগ্রাফি বিভাগ বন্ধ থাকলেও, সমস্যার সমাধানে কোন উদ্যোগই নেই কর্তৃপক্ষের। যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, সমস্যার কথা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানোর পাশাপাশি ইউএসজি বিভাগের জন্য এক জন চিকিৎসক চাওয়া হয়েছে।

জেলা হাসপাতালের স্বীকৃতি পাওয়ার পরে গত কয়েক বছরে আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে রোগীর চাপ আগের তুলনায় অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে। প্রতিদিন জেলার বিভিন্ন প্রান্তের প্রচুর রোগী এই হাসপাতালে আসেন। যাদের অনেকে আউটডোর থেকে পরিষেবা নেন, আবার অনেকে ইনডোরে ভর্তি হন। রোগের কারণ বুঝতে যাদের অনেককেই আলট্রাসোনগ্রাফি করার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। অথচ, আড়াই মাসের বেশি সময় ধরে গুরুত্বপূর্ণ এই বিভাগটি বন্ধ বলে অভিযোগ।

হাসপাতাল সূত্রের খবর, আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে আলট্রাসোনোগ্রাফির দায়িত্বে ছিলেন একজন মাত্র রেডিওলজিস্ট। গত বছর ডিসেম্বর মাসে তিনি ইস্তফা জমা দেন। তবে সরকারি নিয়ম মেনে তারপরও তিন মাস কাজ চালিয়ে যান তিনি। কিন্তু গত ১ এপ্রিল থেকে তিনি হাসপাতালে আসা পুরোপুরি বন্ধ করে দিয়েছেন। যার ফলে ওইদিন থেকে বন্ধ হাসপাতালের ইউএসজি বিভাগ।

হাসপাতালের কর্তারা জানিয়েছেন, ওই চিকৎসকের ইস্তফাপত্রটি সঙ্গে সঙ্গেই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সেটি গ্রহণ হয়েছে কি না, সেই খবর এখনও পর্যন্ত তাঁদের কাছে নেই। ফলে ওই মাস থেকেই চিকিৎসকের মাইনেও বন্ধ করে রেখেছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু রোগীদের প্রশ্ন, বিকল্প চিকিৎসকের ব্যবস্থা করে কেন হাসপাতালে আলট্রাসোনগ্রাফি চালু করতে উদ্যোগী হচ্ছেন না কর্তৃপক্ষ? সুপার চিন্ময় বর্মণ জানান, “অন্য একজন চিকিৎসক চাওয়া হয়েছে। চিকিৎসক এলেই বিভাগটি পুনরায় চালু হয়ে যাবে।” তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের এই আশ্বাসে অবশ্য খুশি নন আলট্রাসোনোগ্রাফির জন্য প্রতিদিন দুর্ভোগে পড়া রোগী ও তাদের আত্মীয়রা। হাসপাতালে ভর্তি এক রোগী আত্মীয়ের অভিযোগ, “বুধবার আমার স্ত্রীকে চিকিৎসকরা আলট্রাসোনগ্রাফির পরামর্শ দেন। কিন্তু গিয়ে দেখি বিভাগটা বন্ধ। এরপর স্ত্রীকে একটি বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে গিয়ে ইউএসজি করাই।”