রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতেই হঠাৎ যেন কেঁপে উঠল মাটি। ভূমিকম্প হচ্ছে, তা বুঝতে পেরেই কিছুক্ষণের মধ্যে হুড়োহুড়ি পড়ে যায় বাসিন্দাদের মধ্যে। বুধবার সকালের এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে জলপাইগু়ড়ি শহর ও শহরতলিতে।

এ দিন সকালে ভূমিকম্প টের পেতেই রাস্তার গাড়়িগুলিও দাঁড়িয়ে পড়ে। কেউ এদিক ওদিক বসে পড়েন। ফনীন্দ্রদেব বিদ্যালয়ের ছাত্ররাও ছুটোছুটি শুরু করে দেয়।  ক্লাসের ভিতরে যে সব ছাত্ররা ছিল, একছুটে বাইরে বেরিয়ে তারা জড়ো হয় স্কুলের মাঠে। বিভিন্ন দোকানের ব্যবসায়ীরাও দোকান ছেড়ে নেমে আসেন রাস্তায়। কাজের দিনে সরগরম ছিল জলপাইগুড়ি বড় পোস্ট অফিসও। এ দিনের ভূমিকম্পের জেরে আতঙ্ক ছড়ায় সেখানেও। কর্মী, গ্রাহক সকলেই বেরিয়ে আসেন রাস্তায়। পাড়ায় পাড়ায় নানা বাড়ি থেকে পাওয়া গিয়েছে শঙ্খ, উলুধ্বনির আওয়াজ। জলপাইগুড়ি শহরে প্রচুর বহুতল রয়েছে। ভূমিকম্প টের পেয়ে সেখান থেকেও নেমে আসেন বাসিন্দারা।

ভূমিকম্পের উৎসস্থল ছিল প্রতিবেশী রাজ্য অসম। রিখটার স্কেলে তীব্রতা ছিল ৫.৫। এ দিনের ভূমিকম্পের ঘটনায় অনেকের মনে পড়েছে ২০১১ সালের ১৮ই সেপ্টেম্বরে হয়ে যাওয়া ভয়াবহ ভূমিকম্পের কথা, সে দিন বিশ্বকর্মা পুজো ছিল। ফিরে আসে সেই আতঙ্কও। তবে তা বেশিক্ষণ স্থায়ী ছিল না। সব স্বাভাবিক হওয়ার পরেও এ দিন শহরের মানুষের মুখে মুখে ফিরেছে ভূমিকম্পের কথাই।