• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

সীমান্তে আক্রান্ত বিএসএফ, গুলিতে নিহত যুবক

BSF
প্রতীকী চিত্র।

ফেনসিডিল পাচারের চেষ্টা ঘিরে বিএসএফের গুলিতে মৃত্যু হল এক বাংলাদেশি যুবকের। শনিবার রাতে মালদহের বাংলাদেশ সীমান্তের গোপালনগরে। বিএসএফ সূত্রে জানা গিয়েছে, এ পারের একদল পাচারকারীদের ছোঁড়া ফেনসিডিল ওপারের কারবারিরা নিতে এলে টহলরত বিএসএফ জওয়ানরা বাধা দেন। অভিযোগ, তখন বাংলাদেশি একদল পাচারকারী কাঁটাতায়ের ওপার থেকে দা ও পাথর ছুঁড়ে বিএসএফের উপরে হামলার চেষ্টা করে। বিএসএফ আত্মরক্ষা ও সরকারি সম্পত্তি রক্ষায় গুলি চালায়। তাতে এক বাংলাদেশি পাচারকারী ঘটনাস্থলেই মারা যায়। ঘটনাস্থলে উদ্ধার হয়েছে ৭৫ বোতল ফেনসিডিল। বিএসএফ জানিয়েছে, মৃতদেহ কালিয়াচক থানার পুলিশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে। মৃতের পরিচয় জানা যায়নি।
বিএসএফ সূত্রে জানা গিয়েছে, গোপন সূত্রে খবর মিলেছিল, শনিবার রাতে গোপালনগর সীমান্ত দিয়ে ফেনসিডিল কাফসিরাপ বাংলাদেশে পাচারের চেষ্টা হতে পারে। বিএসএফের ২৪ নম্বর ব্যাটেলিয়নের গোপালনগর সীমান্ত চৌকি সংলগ্ন এলাকায় সন্ধ্যা থেকেই টহলদারি বাড়িয়ে দেওয়া হয়। বিএসএফ জানিয়েছে, রাত দশটা নাগাদ গোপালনগরের দিক থেকে ১০-১২ জন পাচারকারী মাথায় ফেনসিডিল কাফ সিরাপের বোঝা নিয়ে কাঁটাতারের বেড়ার দিকে যাচ্ছিল। একই সময়ে বাংলাদেশের দিক থেকেও কয়েক জন পাচারকারী কাঁটাতারের বেড়ার কাছাকাছি আসছিল। বিএসএফ জওয়ানরা তাদের দু'পক্ষকেই চ্যালেঞ্জ করে। ওই সময়ে এপারের পাচারকারীরা কয়েকটি ফেনসিডিলের বোঝা কাঁটাতারের বেড়ার ওপর দিয়ে ছুঁড়ে দেয়। কয়েকটি বোঝা কাঁটাতারের মধ্যে আটকে যায়। তার পরেই তারা অন্ধকারে গোপালনগরের দিকে পালিয়ে যায়। 
অভিযোগ, বাংলাদেশি পাচারকারীদের দলটি বিএসএফ জওয়ানদের দিকে পাথর ও দা ছোঁড়ে। দায়ের আঘাতে এক জওয়ান আহত হন। বিএসএফের দাবি, আত্মরক্ষায এবং সরকারি সম্পত্তি রক্ষার জন্য ওই বিএসএফ জওয়ান পাম্প অ্যাকশন গান থেকে এক রাউন্ড গুলি ছোঁড়েন। বাকি পাচারকারীরা বাংলাদেশের দিকে পালিয়ে গেলেও এক পাচারকারী মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে বিএসএফ জওয়ানরা তল্লাশি চালিয়ে তার মৃতদেহ 
উদ্ধার করে। 
বিএসএফের ২৪ নম্বর ব্যাটালিয়নের কমাণ্ডান্ট অনিল কুমার হোতকার বলেন, "বিএসএফের গুলিতে এক সন্দেহভাজন বাংলাদেশি পাচারকারীর মৃত্যু হয়েছে। বিএসএফ জওয়ান আত্মরক্ষায় যদি গুলি না চালাতেন তবে দশ-বারোজন জওয়ানের প্রাণ যেতে পারত।" কালিয়াচক থানার পুলিশ জানিয়েছে, বিএসএফের অভিযোগের ভিত্তিতে একটি মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন