পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে বোমা ও গুলি ছোড়ার পরে কয়েক ঘণ্টা যেতে না যেতেই ফের ভেটাগুড়ি গ্রামে বোমাবাজি ও বোমা উদ্ধারের  ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ল। রবিবার রাতে দিনহাটা ১ ব্লকের ভেটাগুড়ির শাকদল ও ব্রহ্মানিরচৌকি এলাকায় বোমাবাজির ঘটনার পরে পুলিশ দুই এলাকা থেকে দু’টি তাজা বোমা উদ্ধার করে। দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত জানান, এ দিন দুই এলাকায় বেশ কিছুক্ষণ ধরে বোমাবাজি হয়। খবর পেয়ে তাঁরা সেখানে যান। রবিবার সকালে ওই দুই এলাকা থেকেই দু’টি  বোমা উদ্ধার করা হয়।

প্রসঙ্গত রাজ্য পুলিশের ডিজি কোচবিহারে এসে বৈঠক করে যাওয়ার পর ৪৮  ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই শনিবার রাতে ভেটাগুড়ি তে পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি ও বোমা ছোড়া হয়। তারপর  এদিন  রাতে এলাকায় একাধিক বোমা ফাটানো হয়। এদিন সকালে পুলিশ ওই দুই গ্রাম থেকেই বোমা দুটি উদ্ধারের ঘটনায় এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যেও আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।

তৃণমূল কংগ্রেস নেতা বিধায়ক উদয়ন গুহ বলেন, ভেটাগুড়িকে বিজেপি মুক্তাঞ্চলে পরিণত করে তুলেছে। বিজেপি নেতা সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক ১৫ দিনের মধ্যে জেলা থেকে তৃণমূলকে মুছে ফেলার ঘোষণার পরই ওই দলের কর্মী-সমর্থকরা উৎসাহিত হয়ে তৃণমূল কর্মীদের উপর এমনকি সাধারণ মানুষের ওপর নানাভাবে ভয় ভীতি সঞ্চার করছে। এলাকায় শান্তি ফিরিয়ে আনতে পুলিশকে কঠোর ভাবে পদক্ষেপ গ্রহণের কথাও বলেন বিধায়ক উদয়ন গুহ।

বিজেপির কোচবিহার জেলা সহ-সভাপতি ব্রজগোবিন্দ বর্মণ বলেন তৃণমূল সদস্যরাই ভেটাগুড়ি সহ গোটা জেলাকে  অশান্ত করে তোলার চেষ্টা করছে। নিজেরাই কোন্দলে জর্জরিত হয়ে আক্রমণ প্রতি আক্রমণ করে বিজেপির ঘাড়ে দোষ চাপানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। উল্লেখ্য, গত লোকসভা ভোটের ফল প্রকাশের পর থেকেই রাজনৈতিক ভাবে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ভেটাগুড়ি এলাকা। বিষয়টি নিয়ে দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত বলেন, ‘‘রবিবার রাতে ভেটাগুড়ির শাকদল ও ব্রহ্মানিরচৌকি এলাকায় বেশ কয়েকটি বোমা ফাটায় দুষ্কৃতীরা। এ দিন সকালে দুই গ্রাম  থেকেই দুইটি বোমা উদ্ধার করা ছাড়াও ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।’’