বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের প্রার্থী কে হতে পারেন, তা নিয়ে এলাকাতে আলোচনা চলছিল। বৃহস্পতিবার ইসলামপুরের আসনটির জন্যই প্রার্থীপদ ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অবশেষে সমস্ত অভিমান ভুলেই বিধানসভা উপনির্বাচনের প্রার্থী হয়েই দলে ফিরছেন নয় বারের বিধায়ক তথা প্রাক্তন মন্ত্রী আব্দুল করিম চৌধুরী। শাসকদলে প্রার্থী হিসেবে তাঁর নাম প্রকাশ পাওয়ার পরেই খুশির হাওয়া ইসলামপুরের করিম চৌধুরীর মেলার মাঠের গোলঘরে।

বিধানসভা উপনির্বাচন ঘোষণা হতেই  এলাকা জুড়েই আলোচনার মুখ্যবিষয় ছিল প্রাক্তন মন্ত্রীকে ফের দলে ফেরানো হচ্ছে কি না! মঙ্গলবার  করিম তাঁর অনুগামীদের নিয়ে বৈঠক করে জানিয়েছিলেন, যদি মুখ্যমন্ত্রী তাঁকে ফোন করে, তবেই শাসক দলের হয়েই প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে চিন্তাভাবনা করবেন। তবে করিম ঘনিষ্ঠ সূত্রে খবর, তাঁকে প্রার্থী করানোর বিষয় নিয়ে জেলার পরিদর্শক শুভেন্দু অধিকারী মঙ্গলবার রাতে তাঁকে ফোনও করেছিলেন। সেই ফোনের কথা অবশ্য স্বীকার করে নিয়েছেন প্রাক্তন মন্ত্রী। 

বৃহস্পতিবার বেলা প্রায় পৌনে দু’টো নাগাদ মুখ্যমন্ত্রী করিম চৌধুরীর নাম ঘোষণা করতেই মেতে ওঠেন করিম অনুগামীরা। মিনিট দশেকের মধ্যেই ঘর থেকে বাইরে বেরিয়ে আসেন করিম। তাঁকে দেখেই জড়িয়ে ধরেন অনেক কর্মী সমর্থকেরা। কেউ ফুলের মালা, কেউ বা দলীয় উত্তরীয় পরিয়ে দেন প্রাক্তন মন্ত্রীকে। আনন্দে পটকা ফাটান অনেকে। শুরু হয়ে যায় মিষ্টি মুখ করানোও। 

এ দিন করিম বলেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী প্রার্থী হিসেবে আমাকে ঘোষণা করেছেন, এতে আমি খুব খুশি। দলের  প্রত্যেককে নিয়েই কাজ করব।’’ তিনি এদিন আরও বলেন, ‘‘আমি একটা দল করেছিলাম বাংলা বিকাশবাদী কংগ্রেস। দলনেত্রীর নির্দেশে তৃণমূলের সঙ্গেই তা মিলিয়ে দিলাম।’’

গত বিধানসভা নির্বাচনে ইসলামপুরের সদ্য বিদায়ী বিধায়ক কানাইয়ালাল আগরওয়ালের কাছে প্রায় সাড়ে সাত হাজারের বেশি ভোটে পরাজিত হন প্রাক্তন মন্ত্রী। সেই সময় কানাইয়ালাল কংগ্রেসের প্রার্থী হলেও সিপিএমের সঙ্গে যৌথ ভাবে লড়াই করেছিলেন। বিধায়ক হওয়ার ছয় মাসের মধ্যেই দলত্যাগ করে তৃণমূলে যোগ দেন কানাইয়ালাল। তবে প্রাক্তন মন্ত্রীর সঙ্গে গোষ্ঠী কোন্দল ছিল। ইসলামপুর কলেজ নির্বাচনে গোষ্ঠীকোন্দল প্রকাশ্যে আসার পরে করিম চৌধুরীকে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। তখনই দল ছেড়ে বাংলা বিকাশবাদী কংগ্রেস গঠন করেন তিনি।

লোকসভা নির্বাচনে দলে দাঁড়াতে গিয়েই নিজের পদ থেকে ইস্তফা দিতে হয় কানাইয়ালাল আগারওয়ালকে। কাজেই সেই পদে উপ নির্বাচন আগামী ১৯মে। এ বার সেখানেই প্রার্থী করা হল করিমকে। এ দিন সদ্য বিদায়ী বিধায়ক কানাইয়ালাল বলেন, ‘‘দল প্রার্থী করেছেন তাঁকে। আমরা তাঁকে স্বাগত জানাচ্ছি। করিম বিপুল ভোটে জিতবেন। আমরা প্রত্যেকেই চেষ্টা করে তাঁকে এই এলাকা থেকে বিপুল ভোটে জেতাব।’’