নবনিযুক্ত প্রধান শিক্ষককে স্কুলে যোগদানে বাধা দেওয়ার অভিযোগে আটক টিচার ইনচার্জের (টিআইসি) বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করলেন কর্তৃপক্ষ। শুক্রবার দুপুরে গঙ্গারামপুরের ফুলবাড়ি হাইস্কুলের ঘটনা। রাতে অভিযোগের পরেই টিআইসি অরুণ মালকে আটক করে পুলিশ। শনিবার তাঁকে থানায় আটকে রেখে পুলিশ তদন্তে নেমেছে। জেলা শিক্ষা সংসদের পক্ষ থেকেও বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

ওই স্কুলে নতুন প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম শুক্রবার কাজে যোগ গিয়েছিলেন। অভিযোগ, স্কুলের গেটে তালা দিয়ে বহিরাগত একদল যুবক বিক্ষোভ দেখায়। এমনকি, স্কুলপড়ুয়াদের একাংশ নতুন প্রধান শিক্ষককে সমর্থন করায় বহিরাগতরা তাদেরও মারধর করে বলে ছাত্রেরা অভিযোগ করেছে। অরুণ এত দিন প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে থেকে স্কুল চালাচ্ছিলেন। সেই পদেই তিনি থাকতে চান বলে বহিরাগতদের এনে প্রধান শিক্ষককে বাধা দেওয়া হয় বলে স্কুল পরিচালন সমিতির অভিযোগ।

পরিস্থিতি সামাল দিতে থানা থেকে পুলিশ এসে প্রধান শিক্ষককে কাজে যোগদান করানো হয়। স্কুল কর্তৃপক্ষের অভিযোগের ভিত্তিতে টিআইসিকে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। স্কুলের পরিচালন সমিতির সভাপতি বুদ্ধদেব ভারতী দাবি করেন, পরিকল্পিত ভাবে কিছু বহিরাগত যুবকদের দিয়ে টিআইসি প্রধান শিক্ষককে যোগদান করতে বাধা দেওয়ার জন্য সব রকম চেষ্টা করেন। প্রশাসনের নির্দেশেই বালুরঘাট নদীপাড় হাইস্কুল থেকে রেজাউল করিমকে এই স্কুলে প্রধান শিক্ষকের পদে আনা হয়েছে। স্কুলের নতুন প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম জানান, তিনি অত্যন্ত মর্মাহত। একটি স্কুল ছেড়ে এই নতুন স্কুলে যোগ দিতে এসে চরম হেনস্থা হতে হল। দীর্ঘ দিন ওই পদে থাকার কারণেই হয়তো টিআইসি এমন করেন বলে তাঁর অভিযোগ।

শনিবার পুলিশ থানায় আটক রেখে অভিযুক্ত টিআইসির বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত শুরু করেছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গ্রামীণ) ওয়াংদেন ভুটিয়া জানান, স্কুল কর্তৃপক্ষের তরফে টিআইসির বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তদন্ত চলছে। তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা ওই অভিযোগ অস্বীকার করেন টিআইসি অরুণ পুলিশের কাছে দাবি করেন, স্কুল কর্তৃপক্ষ ষড়যন্ত্র করে তাঁকে ফাঁসিয়েছেন। ডিআই মৃণালকান্তি রায়সিংহ জানান, তিনি ছুটি থেকে ফিরে অভিযোগ খতিয়ে দেখে পদক্ষেপ করবেন।