দলের দুর্দিনে দল ছেড়ে গিয়েছেন সাংসদ মৌসম নুর। তাই নিজেদের মোবাইল থেকে তো বটেই, মন থেকে সাংসদের নাম ‘মুছে’ সংগঠনের কাজে নামার শপথ নিলেন কংগ্রেসের বিধায়কেরা। 

শনিবার মালদহ কংগ্রেসের উদ্যোগে রতুয়া বাসস্ট্যান্ডে লোকসভার প্রস্তুতি শীর্ষক একটি সভা ছিল। সেখানে জেলা কংগ্রেস সভাপতি তথা হরিশ্চন্দ্রপুরের বিধায়ক মোস্তাক আলম-সহ দলের ছয় বিধায়ক ছিলেন। সেখানেই দলত্যাগী সাংসদকে মোবাইল ফোনে নামের তালিকা এবং একইসঙ্গে মন থেকে মুছে ফেলার শপথ নেন ছয় বিধায়ক। দলের কর্মীদেরও একই বার্তা দিয়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে ঝাঁপিয়ে পড়ার বার্তাও দেওয়া হয়।

মোস্তাক বলেন, ‘‘দুর্দিনে দলের কর্মীদের আগলে রাখাই জেলা সভাপতির দায়িত্ব। কিন্তু পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকেই সাংসদ কর্মীদের কথা না ভেবে নিজের কথা ভাবতে শুরু করে দেন। মালদহে যাঁরা গনি খানের আদর্শে বিশ্বাসী তাঁদের কেউ কংগ্রেস ছাড়েননি, ছাড়বেনও না। সময়ে মানুষই উপযুক্ত জবাব দেবেন।’’

এ দিন সভায় হাজির ছিলেন চাঁচলের বিধায়ক আসিফ মেহবুব, মালতীপুরের বিধায়ক আলবেরুনি জুলকারনাইন, পুরাতন মালদহের বিধায়ক ভূপেন্দ্রনাথ হালদার, মানিকচকের বিধায়ক মোত্তাকিন আলম ও সুজাপুরের বিধায়ক ইশা খান চৌধুরী। সামনেই লোকসভা নির্বাচন। ফলে সাংসদ দল ছাড়লেও জেলার ছয় বিধায়ক যে এখনও কর্মীদের পাশে রয়েছেন তা বোঝাতেই এ দিন প্রত্যেকেই হাজির ছিলেন। এমনকি, কর্মীদের মনোবল ফেরাতে এরপর থেকে প্রতিটি সভাতেই একসঙ্গে তাঁরা হাজির থাকবেন বলেও দলীয় সূত্রে খবর। এক প্রতিক্রিয়ায় সাংসদ মোসম অবশ্য বলেন, ‘‘কে কোথায় কী বলছেন, তা নিয়ে ভাবছি না। কেন দল ছেড়েছি, তার কারণও এর মধ্যে নানা সভায় বলেছি। এখন এলাকার উন্নয়ন কীভাবে হবে তা নিয়েই ভাবছি।’’