• অভিজিৎ সাহা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ভিড়ে ঠাসা ট্রেন, ক্ষুব্ধ শ্রমিকরাও

malda
সামাজিক দূরত্বের বালাই নেই মালদহ টাউন স্টেশনে। নিজস্ব চিত্

ঠাসাঠাসি করে ট্রেনে ফিরতে হচ্ছে জেলায়। জেলা থেকে বাড়িতে ফিরতে হচ্ছে ভিড় বাসে। ঘেঁষাঘেষি করে দিতে হচ্ছে লালারসের নমুনা, নাম-ঠিকানা। সামাজিক দূরত্ববিধি উড়িয়ে এমন ভাবেই ট্রেনে, বাসে ফিরতে হওয়ায় ক্ষুব্ধ পরিযায়ী শ্রমিকেরা। তাঁদের দাবি, ভিন্ রাজ্য থেকে ফেরা সবাই করোনা আক্রান্ত নন। তাই ট্রেনেও সামাজিক দূরত্ববিধি মেনে চলার দাবিতে সরব মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুরের আকবর শেখ, কালিয়াচকের হামিদুল বিশ্বাসেরা। সোমবারও ভিন্ রাজ্য থেকে মালদহে পৌঁছয় ২০টিরও বেশি ‘শ্রমিক স্পেশাল’ ট্রেন। 

১৪ মে থেকে ভিন্ রাজ্যে আটকে থাকা পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরানোর কাজ শুরু হয়। মালদহে ১৬ মে থেকে আসতে শুরু করে একের পর এক ট্রেন। রবিবারও জেলায় ভিন্ রাজ্য থেকে পৌঁছয় ২০টি ট্রেন। এ দিন সকাল থেকেই ট্রেন আসতে
শুরু করে। 

রেল সূত্রে জানা গিয়েছে, মালদহ টাউন স্টেশনে এ দিন ২০টিরও বেশি ট্রেন পৌঁছেছে। প্রতিটি ট্রেনে ১৪০০-১৪৫০ জন করে যাত্রী ছিলেন। প্রশাসনিক সূত্রে জানা গিয়েছে, মালদহেই দুই দিনাজপুর, মুর্শিদাবাদ এবং দক্ষিণবঙ্গের অন্য জেলার যাত্রীরা নামছেন। তাঁদের প্রত্যেককে বাসে গন্তব্যে পৌঁছনো হচ্ছে। 

পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরা শুরু হওয়ায় ভিড় উপচে পড়েছে মালদহ টাউন স্টেশন চত্বরে। ভিড় করে চলছে লালারসের নমুনা সংগ্রহের কাজ। এ নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন পরিযায়ী শ্রমিকেরা। কালিয়াচকের সালেক শেখ, দিলবল মিঞা বলেন, ‘‘ট্রেনে, বাসে যে ভাবে আমাদের নিয়ে আসা হচ্ছে তাতে গোষ্ঠী সংক্রমণের আশঙ্কা রয়েছে। সামাজিক দূরত্বের কোনও বিধি মানা হচ্ছে না।’’ মালদহের ডিআরএম যতীন্দ্র কুমার বলেন, ‘‘সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে লাগাতার স্টেশনে প্রচার চালানো হচ্ছে।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন