ফরাক্কা সেতু মেরামতির জেরে দক্ষিণ দিনাজপুরের হিলি আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে বহির্বাণিজ্য গত প্রায় এক মাস ধরে অচল হয়ে রয়েছে। তার উপরে বাংলাদেশের সাধারণ নির্বাচনের মুখে আমদানি-রফতানি বাণিজ্যও থমকে। দু’পারের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কড়া নজরদারি ও টহলে হিলি সীমান্তের আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট এলাকা শুক্রবার সকাল থেকে খাঁ খাঁ করছে।

গত ৩ ডিসেম্বর থেকে ফরাক্কা সেতুর উপরে ভারী ট্রাক চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশে পাথর রফতানি বাণিজ্য পুরো ব্যাহত হয়ে রয়েছে বলে রফতানিকারীরা জানান।

হিলি এক্সপোর্টার্স অ্যান্ড কাস্টমস ক্লিয়ারিং এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক বিকাশ মণ্ডল বলেন, ‘‘বাংলাদেশের তরফে এখন শুধুই পাথরের চাহিদা। ফল আনাজ চালের বদলে হিলি চেকপোস্ট দিয়ে গত কয়েক মাস ধরে রোজ প্রায় দেড়শো পাথরের টুকরো বোঝাই ট্রাক ও লরি রফতানি চলছিল। কিন্তু ফরাক্কা সেতু সংস্কারের জন্য পাথর-সহ ভারী পণ্যের ট্রাক আসছে না। বিকল্প কোনও পথও নেই। ফলে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে বহির্বাণিজ্য বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। তার উপরে বাংলাদেশে ভোটের জন্য ওপার থেকে আমদানি-রফতানি বাণিজ্যও রয়েছে আটকে।’’

প্রশাসন সূত্রের খবর, বাংলাদেশের সাধারণ নির্বাচন উপলক্ষে ওপারে দাগি অপরাধীদের ধরপাকড় শুরু হয়েছে। হিলি সীমান্তের চোরাপথ টপকে ওপারের অপরাধীরা এপারে ঢুকে নাশকতার ছক করার চেষ্টা করতে পারে বলে বিজিবির কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ ও বিএসএফ সতর্কতা জারি করেছে।

ইতিমধ্যে এ জেলার কুমারগঞ্জ এবং হিলির ত্রিমোহিনী এলাকা থেকে তিন জন সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে বিএসএফ গ্রেফতার করেছে। বিএসএফের এক আধিকারিক জানান, পুরো সীমান্তে কড়া নজরদারি চলছে। ওপারেও সতর্কতা জারি করে বিজিবির পক্ষ থেকেও ব্যাপক কড়াকডি চলছে বলে খবর।

হিলি এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন জানিয়েছে, শুক্রবার এমনিতে বহির্বাণিজ্য বন্ধ থাকে। তবে এক দিকে ফরাক্কা সেতু। এক দিকে এ দিন জাঁকিয়ে শীত পড়েছে। তার উপরে ওপারের নির্বাচন—সব মিলিয়ে বছরের শেষে দুপুরের পর থেকে কর্মহীন, নিশ্চুপ হিলি সীমান্তের ছবিটা অনেকের কাছে অচেনা ঠেকছে।