‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচিতে এলাকায় নেমে বিজেপির শিলিগুড়ি সাংগঠনিক জেলার প্রাক্তন সভাপতি তথা বর্তমান রাজ্য কমিটির সদস্য অরুণ সরকারের বাড়িতে গেলেন রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব। সোমবার সন্ধ্যায় শিলিগুড়ি পুরসভার ৩৭ নম্বর ওয়ার্ডের ঘোঘোমালি এলাকায় যান মন্ত্রী। বিভিন্ন বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলার পর তিনি সোজা অরুণবাবুর বাড়িতে যান। দুই নেতা বেশ কিছুক্ষণ ব্যক্তিগত বিষয়ে আলোচনা করেন। পেশায় আইনজীবী অরুণবাবুর পরিবারের খোঁজখবর নেন মন্ত্রী। তৃণমূলের দখলে থাকা এলাকাটির আরও উন্নয়নের কথা মন্ত্রীকে জানান তিনি। বিজেপি নেতার কথায়, ‘‘গৌতমবাবু বাড়িতে এসেছিলেন। রাজনৈতিক বিষয়ে কোনও কথা হয়নি। আমরা পূর্ব পরিচিত, দেখা হয় ভালই লাগল।’’ ৩৭ নম্বর ওয়ার্ডের বিজেপির কাউন্সিলর ছিলেন অরুণবাবু। ২০১১ সালে শিলিগুড়ি থেকে বিধানসভা ভোটে প্রার্থীও হন।

দলীয় সূত্রের খবর, রাজ্যের বিজেপির উত্থানের পর পুরনো বিজেপি নেতারা অনেকেই শহরে কিছুটা ‘কোনঠাসা’ হয়ে গিয়েছেন বলে অভিযোগ। অরুণবাবু একসময় দলের সমস্ত কর্মসূচিতে প্রথম সারিতে থাকতেন। বর্তমানে রাজ্য ও জেলা কমিটিতে আছেন। তাঁর বাড়িতে ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচিতে তৃণমূলের মন্ত্রী যাওয়ায় রাজনৈতিক আলোচনা শুরু হয়েছে। বিশেষ করে আগামী বছর শিলিগুড়িতে পুরভোট। তার আগে দলের নেতাকে বাড়িতে তৃণমূলের মন্ত্রী যাওয়ায় অস্বস্তিতে দল। বিজেপির শিলিগুড়ির সাংগঠনিক জেলা সভাপতি অভিজিৎ রায়চৌধুরী অবশ্য বলেছেন, ‘‘ওই কর্মসূচি কোথায় হচ্ছে জানি না। তাই কিছু বলতে পারব না।’’

মন্ত্রী অবশ্য এলাকার বিজেপি নেতা শুধু নয়, এক ডিওয়াইএফআই নেতার বাড়িতেও গিয়ে কথা বলেন। এলাকার সমস্যার, উন্নয়ন নিয়ে কথা বলেন। এলাকায় শান্তিপূর্ণ বিধানসভা ভোট হওয়ার জন্য তিনি মন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান। পরে গৌতমবাবু বলেন, ‘‘এ সবের মধ্যে রাজনীতির কোনও জায়গা নেই। দিদিকে বলো নিয়ে আমি সর্বস্তরের মানুষের কাছে যাচ্ছি। বিজেপি অরুণবাবুর সঙ্গে আমার পুরনো সম্পর্ক। আমরা দু’জনে আইনজীবী, কাউন্সিলর হিসাবে একসঙ্গে কাজ করেছি। তাই ওই এলাকায় গিয়ে ওঁর বাড়িতে যাব না এটা হয় না।’’