জয়ের উচ্ছ্বাসে যেন ‘কাঁটা’ মন্ত্রিত্ব না পাওয়ার হতাশা৷

জিতলেই জন বার্লাকে মন্ত্রী করা হবে বলে ভোট প্রচারে আলিপুরদুয়ারের বিভিন্ন জায়গায় প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন বিজেপি নেতারা৷ কিন্তু মন্ত্রিত্বের প্রশ্নে শিকে না ছেঁড়ায় হতাশ জেলার গেরুয়া শিবির৷ তবে আশা ছাড়ছেন না কেউই৷ অনেকেই বলছেন, “মন্ত্রিসভায় আরও সাংসদদের থাকার সম্ভাবনা রয়েছে৷ ফলে সব শেষ হয়ে যায়নি৷”

এ বারের ভোটে প্রচারের সময় জন জিতলে তাঁকে আলিপুরদুয়ার সহ উত্তরবঙ্গের উন্নয়নের লক্ষ্যে কেন্দ্রে মন্ত্রী করা হবে বলেও জেলা নেতারা নানান জায়গায় প্রতিশ্রুতি দেন৷ লোকসভা নির্বাচনের ভোট গণনার পর দেখা যায়, জন শুধু জেতেনইনি, রাজ্যে জয়ী বিজেপি প্রার্থীদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যবধানে জয় পেয়েছেন তিনি৷ বিজেপির জয়ী প্রার্থীদের মধ্যে তাঁর আগে রয়েছেন শুধুমাত্র দার্জিলিং-এর দলের প্রার্থী৷ বিজেপি সূত্রের খবর, এর পুরস্কারস্বরূপ জনকে মন্ত্রিসভায় জায়গা দিতে দলের নেতাদের তরফেও শীর্ষ নেতৃত্বের কাছে আর্জি জানানো হয়৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত অবশ্য তা আর হয়নি৷ বিজেপি সূত্রে খবর, জন মন্ত্রিত্ব না পাওয়ায় রীতিমতো হতাশ আলিপুরদুয়ার জেলার বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের একটা বড় অংশ৷

তবে আশা কিন্তু ছাড়ছেন না বিজেপির জেলা শীর্ষ নেতারা৷ বিজেপির জেলা সভাপতি গঙ্গাপ্রসাদ শর্মা বলেন, “জন বার্লাকে মন্ত্রী করার বিষয়ে দলের কাছে আমাদেরও আর্জি ছিল৷ তবে আমাদের আশা, ভবিষ্যতে মন্ত্রিসভা বিস্তার করা হলে, আমাদের সেই আর্জি পূরণও হতে পারে৷”