জনসংযোগে চমক অর্পিতার
তৃণমূলের প্রার্থী অর্পিতাকে গত পাঁচ বছর বালুরঘাটে দেখা যায়নি বলে প্রচার করে দলের কর্মীদের একাংশ সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছিলেন।
Arpita Ghosh

লাগল যে দোল: উৎসবে মাতলেন বালুরঘাট লোকসভা আসনে তৃণমূলের প্রার্থী অর্পিতা ঘোষ। নিজস্ব চিত্র

মাতৃবিয়োগের পরে এক বছর কাটেনি। তৃণমূল জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্র তাই রং খেলবেন না, জানতেন দলের প্রার্থী অর্পিতা। কিন্তু দলনেতার প্রতি যথাযথ সৌজন্য বজায় রাখতে দোলের দিন সকালে বালুরঘাট থেকে গঙ্গারামপুরের দুর্গাবাড়িতে বিপ্লবের বাড়িতে এসে কর্মীদের সঙ্গে দোল উৎসবে মাতলেন অর্পিতা।শহরের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংস্থার আয়োজিত কার্নিভালেও সামিল হলেন তিনি। 

তৃণমূলের প্রার্থী অর্পিতাকে গত পাঁচ বছর বালুরঘাটে দেখা যায়নি বলে প্রচার করে দলের কর্মীদের একাংশ সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছিলেন। দোলকে কেন্দ্র করে অর্পিতার জনসংযোগের বহর দেখে শুধু তাঁরা নন, চমকেছেন বিরোধী প্রার্থীরাও।

বাম প্রার্থী রণেন বর্মনকেও এ দিন সাত সকালে বাইক নিয়ে পাড়ায় পাড়ায় গিয়ে দোল খেলতে দেখা গিয়েছে। দোলের অনুষ্ঠানকে হাতিয়ার করে ভোট প্রচারের সুযোগ হাতছাড়া করতে চান না কেউই। কংগ্রেস প্রার্থী আব্দুস সাদেক সরকারও পিছিয়ে নেই। তিনিও কর্মীদের নিয়ে উৎসবে মাতেন। 

বালুরঘাট হাইস্কুল মাঠে আয়োজিত হৃদকমল ডান্স অ্যাকাডেমি আয়োজিত ‘রাঙিয়ে দিয়ে যাও’ উৎসবে সামিল হন অর্পিতা। মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের অফিস মাঠে অর্পণ কলা কেন্দ্রের বসন্ত উৎসবেও যোগ দেন তিনি।

কংগ্রেস প্রার্থী আব্দুস সাদেক সরকার গঙ্গারামপুরের ফুলবাড়িতে ও বালুরঘাটে দলীয় নেতা কর্মীদের সঙ্গে দোলযাত্রায় যোগ দেন। ‘রঙে রঙে রাঙা হল’ বার্তা দিয়ে বালুরঘাট শহরে স্পন্দন কলাকেন্দ্র, নৃত্যাঞ্জলি এবং শ্রুতি কথার যৌথ উদ্যোগে নাচ গানের মধ্যে দিয়ে শহরজুড়ে কার্নিভালে তো বটেই, আলাদা করেও দোল উৎসবে প্রচারের কর্মসূচিতে নামে গেরুয়া শিবির।