পাহাড়ে কার প্রার্থী, জটে বিরোধীরা
রাজ্য বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রার্থী ঠিক করা নিয়ে তাদের দল স্থানীয় নেতৃত্বের সঙ্গে শনিবার মাটিগাড়ার একটি হোটেলে কয়েক দফায় আলোচনা করেছে মোর্চা ও জিএনএলএফ নেতাদের সঙ্গে।
election

লোকসভার প্রার্থী ঠিক করার সময়ই বিনয় তামাংপন্থী মোর্চাকে পাহাড়ে ভোটে লড়ার সূত্র বাতলে দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর সেই সূত্র অনুসারে লোকসভায় তৃণমূলকে সাহায্য করবেন বিনয় তামাংরা। আর বিধানসভায় মোর্চাকে সাহায্য করবে তৃণমূল। সেই মতো দার্জিলিং বিধানসভার উপনির্বাচনে তাঁরা নিজেদের প্রতীকে লড়াই করবে বলেই জানিয়ে দিলেন বিনয় তামাং। কয়েক দিনের মধ্যেই তাঁরা প্রার্থীর নাম ঘোষণা করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। অন্য দিকে, বিজেপি জোটের ক্ষেত্রে ছবিটা এত স্পষ্ট নয়। বিমল গুরুংপন্থী মোর্চা ছাড়াও বিজেপির সঙ্গে আছে জিএনএলএফ ও সিপিআরএম। সূত্রের খবর, দার্জিলিং কেন্দ্রে কোন দল প্রার্থী দেবে, তা নিয়ে সিদ্ধান্তে পৌঁছতে হিমশিম খাচ্ছেন জোটের নেতারা। যদিও বিমলপন্থী মোর্চার মুখপাত্র বিপি বজগাই জানিয়েছেন, তাঁরা সর্বসন্মতিতে একজন প্রার্থী ঠিক করতে সব দলকে নিয়ে আলোচনা শুরু করেছেন।

রাজ্য বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রার্থী ঠিক করা নিয়ে তাদের দল স্থানীয় নেতৃত্বের সঙ্গে শনিবার মাটিগাড়ার একটি হোটেলে কয়েক দফায় আলোচনা করেছে মোর্চা ও জিএনএলএফ নেতাদের সঙ্গে। তবে সেখান থেকে কোনও সমাধান সূত্র বের হয়নি। লোকসভায় রাজু বিস্তাকে সমর্থন করলেও বিধানসভায় তাঁরা জোটে থাকবেন, নাকি আলাদা প্রার্থী দেবেন— তা এখনও স্পষ্ট করেননি সিপিআরএম নেতৃত্ব। দলের মুখপাত্র গোবিন্দ ছেত্রী জানিয়েছেন, তাঁরা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন। রাজ্য বিজেপির একটা অংশ চাইছে তৃণমূলের পথে হেঁটে বিধানসভায় কোনও জোটসঙ্গীকে সমর্থন করতে। বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, মোর্চা ও জিএলএলএফ দুই দলই দার্জিলিং আসনের দাবিদার। সে ক্ষেত্রে এক পক্ষকে সমর্থন করলে অন্য পক্ষ ক্ষুব্ধ হতে পারে বলেই আশঙ্কা দলের রাজ্য নেতাদের। তাই প্রার্থী সমস্যা মেটাতে আলোচনা দিল্লিতে নিয়ে যেতে চাইছেন তাঁরা। রাজ্য বিজেপির এক নেতা বলেন, ‘‘লোকসভাতেও জোট হয়েছে দিল্লিতে আলোচনা করেই। বিধানসভাতেও একই পথে হাঁটলে সমস্যা সহজে মিটবে।’’

জিএনএলএফের মুখপাত্র নীরজ জিম্বা বলেন, ‘‘আমরা আলোচনা শুরু করে দিয়েছি। সব দলেরই দাবি থাকতে পারে। তবে জোট টিকিয়ে রাখতে গেলে একটা সমাধান সূত্র বের করতে হবে। আমরা বিশ্বাস করি তৃণমূল ও বিনয়পন্থীদের বিরুদ্ধে লোকসভার মতোই ঐকবদ্ধ লড়াই করব।’’ বিজেপির পাহাড় কমিটির সভাপতি মনোজ দেওয়ান বলেন, ‘‘আলোচনার মাধ্যমেই একজন যোগ্য প্রার্থী ঠিক করা হবে।’’ 

উল্টো দিকে, উপনির্বাচন নিয়ে এ দিন দার্জিলিঙের একটি হোটেলে দলের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন বিনয়। সূত্রের খবর, প্রচার শুরু করে দেওয়ার জন্য নেতাদের দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়া হয়েছে। প্রার্থী নিয়ে প্রাথমিক আলোচনাও হয়েছে। বিনয় বলেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূলের পর্যবেক্ষক অরূপ বিশ্বাসের সঙ্গে টেলিফোনে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। আমরা প্রার্থীর নাম ঠিক করে তৃণমূলের সঙ্গে আলোচনায় বসব। আমাদের প্রতীকেই প্রার্থী ভোটে লড়বেন।’’

২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত