মিলল না রাহুলের কপ্টারের অনুমতি
কপ্টার নামার জন্য কমিশনারেটের মাঠ চাওয়া হয়েছিল। কারণ, সেখান থেকে দার্জিলিং মোড় হয়ে সহজেই দাগাপুরের ওই মাঠে পৌঁছনো যাবে।
TMC

দার্জিলিং কেন্দ্রে দলের প্রার্থীর হয়ে প্রচারে আসার কথা রয়েছে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গাঁধীর। সব ঠিক থাকলে ১৪ এপ্রিল শিলিগুড়ির কাছে হওয়ার কথা সেই সভা। তার জন্য পুলিশ কমিশনারেটের মাঠে রাহুলের কপ্টার নামানোর জন্য অনুমতি চেয়েছিল জেলা কংগ্রেস। কিন্তু সেই অনুমতি দিল না পুলিশ-প্রশাসন। যা নিয়ে তরজা শুরু হয়েছে শাসক দল ও কংগ্রেসের মধ্যে। কংগ্রেসের অভিযোগ, শাসক দলের ষড়যন্ত্রেই এসব করা হচ্ছে। যদিও সেই অভিযোগ মানতে চায়নি তৃণমূল। 

১৪ এপ্রিল দাগাপুরের একটি ব্যক্তিগত মালিকানাধীন মাঠে প্রচারে আসার কথা রয়েছে রাহুলের। কপ্টার নামার জন্য কমিশনারেটের মাঠ চাওয়া হয়েছিল। কারণ, সেখান থেকে দার্জিলিং মোড় হয়ে সহজেই দাগাপুরের ওই মাঠে পৌঁছনো যাবে। দলীয় নেতাদের দাবি, সেই অনুমতি চেয়ে গত ৭ এপ্রিল আবেদন করা হয় সুবিধা অ্যাপের মাধ্যমে। কিন্তু পাঁচ দিন পরে অর্থাৎ ১২ এপ্রিল, শুক্রবার অনুমোদন না দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানানো হয়। যদিও পুলিশের তরফে দাবি করা হয়েছে, তাঁরা ১১ এপ্রিল আবেদনপত্র হাতে পেয়েছেন। সে দিনই মৌখিকভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল, ওই মাঠ ব্যবহার করতে দেওয়া সম্ভব নয়। কমিশনারেট সূত্রে দাবি করা হয়েছে, পুলিশের ওই মাঠে এখন কেন্দ্রীয় বাহিনী যাতায়াতের জন্য প্রতিনিয়ত গাড়ি পার্কিং করা হচ্ছে। সেখানে কপ্টার নামার অনুমতি দেওয়া সম্ভব নয়।

দার্জিলিং কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী তথা প্রদেশ কংগ্রেসের কার্যকরী সভাপতি শঙ্কর মালাকারের অভিযোগ, পক্ষপাতমূলক আচরণ করছে পুলিশ। তাঁর কথায়, ‘‘রাহুল গাঁধী যাতে এ রাজ্যে আসতে না পারেন, সেই ষড়যন্ত্র করছে শাসকদল এবং তাতে পূর্ণ মদত দিচ্ছে পুলিশ এবং প্রশাসন। সব জায়গায় মুখ্যমন্ত্রী এবং তৃণমূলের হেভিওয়েটদের কপ্টার নামার অনুমতি দিয়ে দেওয়া হচ্ছে।’’ এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন দার্জিলিং তৃণমূল জেলা সভাপতি গৌতম দেব। তিনি বলেন, ‘‘কংগ্রেসকে নিয়ে একটিও কথা বলব না। ওরা অপ্রাসঙ্গিক। সেনার মাঠে কপ্টার নামার অনুমতি আমরাও অনেক জায়গায় পাইনি। এগুলো কমিশনের বিষয়।’’  

সুবিধা অ্যাপের মাধ্যমে সভার ৪৮ ঘণ্টা আগে আবেদন করতে হয়। তাই শুক্রবার মাঠের অনুমোদন বাতিলের পরে নতুন করে মাঠ খুঁজে ফের আবেদন করা সম্ভব ছিল না বলে জানাচ্ছেন কংগ্রেস নেতারা। দলের তরফে জানানো হয়েছে রাহুল গাঁধীর অনুষ্ঠান একদিন পিছিয়ে দিয়ে যদি অন্য মাঠের অনুমোদন পাওয়া যায়, সেই চেষ্টা করা হচ্ছে। কংগ্রেসের আরও অভিযোগ, গত কয়েকদিন ধরে দার্জিলিং, চোপড়ার মতো কয়েকটি জায়গায়, নাগমা, সলমন খুরশিদের মতো তারকা নেতাদের কপ্টার নামার অনুমতি একেবারে শেষ সময়ে দেওয়া হয়েছে। আর না হলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে অনুমতি দেওয়া সম্ভব নয়।

২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত