আজ, সোমবার মহালয়া। তবে ভোর থেকেই নয়, নদীতে এবার তর্পণ শুরু হবে একটু বেলার দিকেই। পুরোহিতদের একাংশ জানিয়েছেন, এবার ভোরে নয় অমাবস্যা শুরুই হবে একটু বেলায়। সোমবার বেলা ১০টা ৪৭ মিনিটে। আবার বিশুদ্ধ সিদ্ধান্ত মতে, অমাবস্যা শুরু হবে বেলা ১১টা ৩২ মিনিটে। তাই আজ সকাল ১০টার পর থেকেই শিলিগুড়ির বিভিন্ন নদীঘাটে ভিড় উপচে পড়বে।

 রবিবার শিলিগুড়ি পুরসভার তরফে বিভিন্ন ঘাট পরিষ্কার করা হয়। মেয়র অশোক ভট্টাচার্য বলেন, ‘‘প্রতিবারই শহরের লালমোহন ঘাট থেকে শুরু করে পুরসভা এলাকার বিভিন্ন ঘাট পরিষ্কার করা হয়। এ বারও ঘাটের আবর্জনা পরিষ্কার করা হয়েছে। তবে নদীর জলে অনেক সময়ই নোংরা ভেসে এসে ঘাটে আটকে থেকে সমস্যা হয়। পুরসভার তরফ থেকে আমরা ব্লিচিং পাউডার স্প্রে করেছি।’’

শিলিগুড়ির এয়ারভিউ মোড় লাগোয়া মহানন্দা নদীর লালমোহন ঘাট, চম্পাসারি ঘাট ছাড়াও নৌকাঘাট এবং মাটিগাড়া বালাসন নদীর ঘাটে প্রতিবার তর্পণ হয়। পুরোহিত নরেন্দ্রমোহন ঝা বলেন, ‘‘এবার তর্পণ একটু বেলা করেই হবে। অমাবস্যার মধ্যেই তর্পণের নিয়ম শাস্ত্রে রয়েছে। আমরাও সেইমতো প্রস্ততি নিয়েছি।’’ পুলিশ জানিয়েছে, মহালয়ার তর্পণের জন্য ঘাটগুলিতে, বিশেষ করে লালমোহন ঘাটে বাড়তি নজরদারি করা হবে। ভোর ৫টার পর থেকে ঘাটে ঘাটে মোতায়েন থাকবে পুলিশ।

এর মধ্যেই প্রতিবারের মত মহালয়ার সকালে শিলিগুড়ি বাঘাযতীন অ্যাথলেটিক ক্লাবের পক্ষ থেকে ৩৪তম হাফ ম্যারাথন অনুষ্ঠিত হবে। সূচনা করার কথা এশিয়াডে সোনাজয়ী স্বপ্না বর্মণের। উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ এবং পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেবের ম্যারাথনে থাকা কথা। সংস্থার ক্লাবের থেকে জানা গিয়েছে, শিলিগুড়ি শালবাড়ি থেকে কলেজপাড়ার ক্লাবের সামনে পর্যন্ত এই হাফ ম্যারাথন

অনুষ্ঠিত হবে। বাঘাযতীন ক্লাবের সম্পাদক কুন্তল রায় জানান, প্রত্যেক বছরেরে মত এ বারেও হাফ ম্যারাথনে মানুষের ঢল নামবে। স্বপ্না বর্মণ অনুষ্ঠানের সূচনা করবেন। হাফ ম্যারাথনে প্রথম স্থানাধিকারী পাবেন এক লক্ষ টাকা। দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানাধিকারী পাবেন ৭৫ হাজার এবং ৫০ হাজার টাকা।