মৌসম নুর যেদিন তৃণমূলে যোগ দেন, সেদিনই তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উত্তর মালদহের দলীয় প্রার্থী হিসেবে তাঁর নাম ঘোষণা করে দিয়েছিলেন। সেই সুবাদে শুক্রবার সকালে হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লকের তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে পরিচিতিপর্ব সভা থেকে উত্তর মালদহের প্রার্থী হিসেবে ভোট প্রচারের কাজ শুরু করে দিলেন মৌসম। বিকেলে হরিশ্চন্দ্রপুর ২ ব্লকেও সভা করেন। আজ শনিবার গাজল ও চাঁচল ১ ব্লকে তার একই ধরনের পরিচিতি পর্ব সভা করার কথা। 

এ দিকে, দলীয় সূত্রে খবর, উত্তর মালদহ এলাকায় প্রচার জোরদার করতে ইতিমধ্যে চাঁচলের বারোগাছিয়া গ্রামে একটি বাড়ি ভাড়াও নিয়েছেন মৌসম। আপাতত সপ্তাহে চার দিন চাঁচলের ওই ভাড়া বাড়ি থেকে ও বাকি তিন দিন মালদহের কোতোয়ালি বাড়ি থেকেই তিনি প্রচারের কাজ সারবেন।

ইংরেজবাজার শহরের স্টেশন রোডের নুর ম্যানসনে তাঁর নিজের কার্যালয় বদলে গিয়েছে তৃণমূলের অন্যতম জেলা কার্যালয়ে। দলীয় সূত্রে খবর, খুবই ব্যস্ত থাকায় উত্তর মালদহ এলাকায় মৌসম তাঁর নিজের ভোট প্রচার শুরু করতে পারেননি। 

এ দিন প্রথম পরিচিতিপর্ব সভা ছিল হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লকের সংগঠন সমিতির হলঘরে। বেলা ১১ টা নাগাদ সভাস্থলে পৌঁছতেই মৌসমকে ঘিরে কর্মী-সমর্থকরা উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন। কর্মী-সমর্থকদের ভিড় ঠেলে হলঘরে পৌঁছতে রীতিমতো হিমসিম খেতে হয় মৌসমকে। ভিড়ে ঠাসা সেই সভায় মৌসমকে ব্লক তৃণমূলের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সেখানে ছিলেন তৃণমূলের ব্লক সভাপতি তজমুল হোসেন, কার্যকরী সভাপতি তথা জেলা পরিষদ সদস্য মর্জিনা খাতুন, আর দুই জেলা পরিষদ সদস্য সন্তোষ চৌধুরী, শ্যামলকুমার মণ্ডলরা। সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে মৌসম এ দিন থেকেই এলাকায় এলাকায় গিয়ে ভোট প্রচার শুরু করে দিতে বলেন। তিনিও হরিশ্চন্দ্রপুরে বেশ কিছু পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন। বিকেলে বারদুয়ারিতে তথ্যমিত্র কেন্দ্রের হলঘরে হরিশ্চন্দ্রপুর ২ ব্লকের পরিচিতিপর্ব সভা হয়। সেখানেও মৌসমকে সংবর্ধনা জানানো হয় এবং কর্মী-সমর্থকদের ভিড় উপচে পড়ে। এই সভায় তৃণমূলের জেলা সভাপতি মোয়াজ্জেম হেসেনও ছিলেন। 

মৌসম বলেন, “এ দিন দুটি পরিচিতিপর্ব সভাতে কর্মী-সমর্থকদের উৎসাহ ও উদ্দীপনা দেখে আমি আপ্লুত। সামনে কঠিন লড়াই। বিজেপিকে ঠেকাতে কর্মীদের সার্বিক সংগ্রামে নামতে অনুরোধ করা হয়েছে। এদিন থেকে আমি প্রচারও শুরু করে দিলাম। শনিবার গাজল ও চাঁচল ১ ব্লকে এমন পরিচিতিপর্ব

সভা রয়েছে।’’