রামনবমীর কায়দায় এ বার জন্মাষ্টমী উৎসবকেও মালদহে জনসংযোগের কাজে লাগাতে চাইছে বিজেপি ও তৃণমূল। জানা গিয়েছে, বিজেপি দলীয় ভাবে জন্মাষ্টমীর কোনও উৎসব করছে না। তবে জেলা জুড়ে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ আয়োজিত জন্মাষ্টমীর উৎসবে শামিল হবে বিজেপি নেতৃত্ব। 

জেলার ব্লকে ব্লকে যে শোভাযাত্রা করা হবে, তাতেও শামিল থাকবেন বিজেপির নেতারা। সে দিন আবার বিশ্ব হিন্দু পরিষদের প্রতিষ্ঠা দিবসও রয়েছে। সেখানেও বিজেপি নেতৃত্ব হাজির থাকবেন। এদিকে তৃণমূল সরাসরি কোনও জন্মাষ্টমীর উৎসব আয়োজন না করলেও দলের নেতা-নেত্রীদের জেলায় অনুষ্ঠিত জন্মাষ্টমীর উৎসবগুলিতে শামিল থাকতে বলা হয়েছে বলে দলীয় সূত্রে খবর। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষণ মহলের মতে, আগামী বছরই জেলার ইংরেজবাজার ও পুরাতন মালদহ পুরসভার ভোট রয়েছে। সেই লক্ষে জনসংযোগ রক্ষাতেই জন্মাষ্টমী উৎসবগুলিতে সামিল হতে চাইছেন তৃণমূল ও বিজেপি নেতারা। 

এ বারের রামনবমীতে মালদহের জেলা সদর ইংরেজবাজার শহরে বিশাল শোভাযাত্রা  পরিক্রমা করেছিল। বিজেপির জেলা সভাপতি থেকে শুরু করে দলের জেলা ও ব্লক স্তরের অসংখ্য নেতা নেত্রীরা সেই শোভাযাত্রায় সামিল হয়েছিলেন। এ ছাড়া জেলার ব্লকে ব্লকেও একইভাবে শোভাযাত্রা হয়েছিল। সেগুলিতেও বিজেপির নেতা-নেত্রীদের দেখা গিয়েছে। রামনবমীর শোভাযাত্রায় তৃণমূলের কিছু নেতাকেও শামিল হতে দেখা গিয়েছিল। 

বিশ্ব হিন্দু পরিষদ সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবার সংগঠনের জেলা কার্যালয়ে সকালে শ্রীকৃষ্ণের নগর সংকীর্তন সহ শোভাযাত্রা বের করা হবে। তারপরেই কৃষ্ণ পুজো ও প্রসাদ বিলি। এছাড়া পরিষদের তরফে ব্লকে ব্লকেও  একইভাবে জন্মাষ্টমী উৎসবের অঙ্গ হিসেবে শোভাযাত্রা হবে। 
তৃণমূলের জেলা নেতা হেমন্ত শর্মা বলেন, ‘‘দলীয় ভাবে জন্মাষ্টমী উৎসব হচ্ছে না। জন্মাষ্টমী উৎসবে প্রচুর মানুষের সমাগম হয়। তাই যেখানে উৎসব হবে সেখানেই নেতা-নেত্রীদের শামিল হতে বলা হয়েছে।