পরীক্ষার সময় সাউন্ড বক্স বাজানো নিয়ে অভিযোগ উঠছিল বারবার। এ দিনও সভায় গিয়ে রবীন্দ্রনাথবাবু দেখেন সাউন্ড বক্স বাজছে। তা দেখে মেজাজ বিগড়ে গিয়ে গাড়ি থেকে নেমেই শুরু করলেন চিত্‌কার, ‘কে বক্স বাজাচ্ছে?’ ‘কার অনুমতিতে?

বিপদ বুঝে সাউন্ড বক্স গুটিয়ে ভ্যানে তুলে পাঠিয়ে দেওয়া হল দোকানে। রবিবার সকালে কোচবিহারের সুটকাবাড়ির ছাট দুধের কুঠিতে কংক্রিটের সেতুর সংস্কারের শিলান্যাস অনুষ্ঠানে এমনই ঘটনা ঘটেছে। পরে খালি গলাতেই বক্তব্য রাখলেন পূর্ত দফতরের পরিষদীয় সচিব রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। তিনি বলেন, “স্থানীয় কয়েকজন বিষয়টি না জেনেই সাউন্ড বক্স এনেছিলেন। আমি তা দেখে বক্স বাজানো যাবে না বলে জানিয়ে দিই তা খুলে নিয়ে যাওয়া হয়।”

মাধ্যমিক পরীক্ষার সময় থেকেই সাউন্ড বক্স বাজানো নিয়ে অভিযোগ উঠতে শুরু করে। মাথাভাঙা হাসপাতালের একটি অনুষ্ঠানে সাউন্ড বাজিয়ে সভা করার অভিযোগ ওঠে বনমন্ত্রী বিনয়কৃষ্ণ বর্মনের বিরুদ্ধে। ওই দিনই নাটাবাড়িতে সাউন্ড বক্স বাজিয়ে দলীয় সভা করার অভিযোগ ওঠে পূর্ত দফতরের পরিষদীয় সচিব রবীন্দ্রনাথবাবুর বিরুদ্ধে। সে সময়ে তিনি জানান, জনবহুল এলাকা থেকে দূরে সভা করা হয়। সভাস্থলের চার দিক কাপড় দিয়ে ঘিরে রাখা হয় যাতে মাইকের আওয়াজ বাইরে যায়নি। চলতি মাসের ১৩ মার্চ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু হয়। ওই দিনই সুংসুঙি বাজারে রবীন্দ্রনাথবাবু একটি সেতুর উদ্বোধন করেন। ওই সভাতেও বক্স বাজিয়ে গান-বাজনার অভিযোগ ওঠে। রবীন্দ্রনাথবাবু গিয়ে মাইক বন্ধ করে দেন বলে জানান। পর পর দু’দিন এ ধরনের ঘটনা প্রকাশ্যে আসায় তা নিয়ে বিরক্ত ছিলেন পূর্ত দফতরের পরিষদীয় সচিব।

ছাট দুধেরকুঠিতে সুটকাবাড়ি থেকে পসারিহাট যাওয়ার একটি সেতু দীর্ঘ দিন ধরে বেহাল হয়ে রয়েছে। সেতুটি সংস্কার করার সিদ্ধান্ত নেয় জেলা পরিষদ। সেই কাজের শিলান্যাস করতেই ওই সভার আয়োজন করা হয়েছিল। গ্রামবাসীরাও জড়ো হয়েছিলেন। উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের জনস্বাস্থ্য কর্মাধ্যক্ষ শুচিস্মিতা দেবশর্মা, পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ চৈতি বর্মন-সহ স্থানীয় নেতারা। রবীন্দ্রনাথবাবু সভাস্থলে যাওয়ার পথে গাড়ি থেকেই লক্ষ করেন, সাউন্ড বক্স বাজছে। গাড়ি থেকে নেমেই তিনি চিত্‌কার করতে থাকলে নেতানেত্রীরা চুপ করে যান। অপর কর্মীরা তড়িঘড়ি করে বক্স কোনও রকমে খুলে টেনে-হিঁচড়ে সভার বাইরে নিয়ে যান।