ক্লাস বন্ধ থাকুক, স্কুলের বারান্দার বসে পড়াশোনা করব— এমনই দাবি করল জলপাইগুড়ির বেরুবাড়ি তফসিলি ফ্রি হাইস্কুলের পড়ুয়ারা। 

দু’মাস স্কুল বন্ধ থাকলে পড়াশোনার ক্ষতি হতে পারে, এই আশঙ্কায় শুক্রবারই স্কুলে বিক্ষোভ দেখিয়েছিল পড়ুয়ারা। সরকারি নির্দেশ মেনে এ দিন শিক্ষকরা স্কুলে আসেননি। পড়ুয়া এবং অভিভাবকেরা এ বার দাবি তুলেছেন, সরকারি নির্দেশ মেনে ক্লাসঘর যদি বন্ধ থাকে, তা হলে পড়াশোনা হোক বারান্দায়। পড়ুয়াদের পাশে থাকায় আশ্বাস দিয়েছেন স্কুলের শিক্ষকরাও। 

জলপাইগুড়ি শহর থেকে ১৭ কিমি দূরে এই স্কুল। প্রায় ১২০০ পড়ুয়া রয়েছে। শুক্রবার সকালে স্কুলে নোটিস দেওয়া হয়, ৩০ জুন পর্যন্ত স্কুলের পঠনপাঠন বন্ধ থাকবে। এর পরেই ক্ষোভে ফেটে পড়ে ছাত্রছাত্রীরা। স্কুলের গেট আটকে বিক্ষোভ দেখায় তারা। শনিবার বৃষ্টি উপেক্ষা করে প্রচুর ছাত্রছাত্রী স্কুলে আসে। এর পরেই পড়ুয়াদের বড় একটি অংশ সিদ্ধান্ত নেয়, স্কুল বন্ধ থাকলেও তারা আসবে। স্কুলের বারান্দার বসে থাকবে তারা। তাদের দাবি, বারান্দার কোচিং ক্লাসের মতো করে পড়াশোনা হোক।

স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্র সুমন মণ্ডল বলে, ‘‘আমাদের তিন মাস পরে পরীক্ষা। সোমবার স্কুলে যাব। বারান্দার বসে থাকব। আমরা চাই বারান্দার ক্লাস নেওয়া হোক।’’ নবম শ্রেণিরই আর এক ছাত্র সৌভিক রায় বলে, ‘‘আমার গৃহশিক্ষক নেই। স্কুলের শিক্ষকরা খুব ভাল পড়ান। তাই আমার কাছে স্কুলই ভরসা। স্কুল বন্ধ থাকলেও যাব।’’

এক ছাত্রের অভিভাবক বিশু রায় বলেন, ‘‘আমার সামর্থ্য নেই গৃহশিক্ষক রাখার। আর এই স্কুলের পড়াশোনা ভাল হয়। এত দিন ছুটি মেনে নেওয়া যায় না।’’ স্কুলের প্রধান শিক্ষক অমিতাভ নিয়োগী বলেন, ‘‘সরকারি নির্দেশের বিষয়ে কিছু বলার নেই। ছাত্ররা যদি স্কুলের বারান্দার এসে বসে, আমাদের কিছু করার থাকবে না। কোচিং ক্লাসের মতো পড়ানো যায় কিনা, তা নিয়ে বৈঠক করতে হবে। প্রয়োজনে জেলা উচ্চ বিদ্যালয় পরিদর্শককেও জানানো হবে। তিনি যা বলবেন, সেটাই মানা হবে।’’