সম্প্রতি দক্ষিণ দিনাজপুরের রাজনীতিতে ভেসে উঠেছিল একটি কথা যে, অধুনা বিজেপি নেতা বিপ্লব মিত্রকে ফোন করেছিলেন জেলায় তৃণমূলের পর্যবেক্ষক পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। তা নিয়ে তৃণমূল ও বিজেপি দুই পক্ষেই তৎপরতা শুরু হয়ে যায়। খোদ বিপ্লববাবুই শনিবার বলেন, ‘‘পুরনো সম্পর্ক থেকেই শুভেন্দু ফোন করেছিলেন।’’ কিন্তু তার সঙ্গে কী কথা হয়েছে, তা বিস্তারিত বলতে চাননি বিপ্লব। তবে এই দিনই শুভেন্দু পরিষ্কার জানিয়ে দেন, এমন কোনও ঘটনা ঘটেনি। তিনি বিপ্লববাবুকে কোনও ফোন করেননি। শুধু তাই নয়, তৃণমূল সূত্রে খবর, এ বার লোকসভা ভোটের সময় তৃণমূলের জেলা সভাপতি থাকাকালীন বিপ্লববাবু যে ভূমিকা পালন করেছেন, দলের শীর্ষ নেতৃত্ব তা ভুলে যাবেন, তেমন পরিস্থিতি এখনও তৈরি হয়নি।

তবে অর্পিতা ঘোষকে দলের জেলা সভাপতির দায়িত্ব দেওয়ার পর তিন মাস কেটে গিয়েছে। দক্ষিণ দিনাজপুরে এখনও গঠিত হয়নি তৃণমূলের জেলা কমিটি। অর্পিতার পাঠানো জেলা কমিটির তালিকা এখনও রাজ্য নেতৃত্বের কাছে অনুমোদিত হয়ে আসেনি। এ নিয়ে অর্পিতার বক্তব্য,  ‘‘জেলা কমিটির তালিকা করে অনেক আগেই বক্সীদার কাছে (রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি) পাঠানো হয়েছে।’’ তিনি বলেন, ‘‘ওই তালিকা এখনও অনুমোদিত হয়ে না এলেও জেলা কমিটির নেতাদের নিয়ে বৈঠক করতে সুব্রতদা বলেন।’’ তাই এ দিন ৬০ জন নেতাকে নিয়ে দলের সাংগঠনিক বিষয়ে ওই বৈঠক হয় বলে অর্পিতা জানান।