দিনহাটা ভেটাগুড়ির ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই ফের দিনহাটায় মূল তৃণমূল ও যুব তৃণমূলের মধ্যে সংঘর্ষে বাড়ি ভাঙচুরের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ল। রবিবার রাতে দিনহাটা ১ ব্লকের ছোট ফকির তকেয়া এলাকায় মূল তৃণমূল ও যুব তৃণমূলের মোট পাঁচটি বাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। 

অভিযোগ, মূল তৃণমূলের বুথ সভাপতি নাজিমুদ্দিন মিঁয়া ছাড়াও দলীয় কর্মী  রেজ্জাক সরকার, নুর ইসলাম মিঁয়ার বাড়িতে ভাঙচুর করে যুব তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। পাল্টা যুবদের পক্ষ থেকেও গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান বাপি হোসেন সহ আরও একটি বাড়িতে ভাঙচুর করা হয় বলে অভিযোগ তোলা হয়েছে। সেই সঙ্গেই যুব নেতাদের বাড়িতে ভাঙচুরের ঘটনায় অভিযোগ তোলা হয়েছে বিজেপির বিরুদ্ধে। মূল তৃণমূলের স্থানীয় বুথ সভাপতি নাজিমুদ্দিন মিঁয়া বলেন, ‘‘গত কয়েক দিন থেকেই তৃণমূল যুবর নামে কিছু দুষ্কৃতী এলাকায় সন্ত্রাস শুরু করেছে। পাশাপাশি বেশ কয়েকটি বাড়িও কয়েক জন ভাঙচুর করেছে।’’ গোটা ঘটনা জেলা নেতৃত্বকে জানানো হয়েছে বলেও তিনি জানান। 

তৃণমূলকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে যুব তৃণমূলের নাম নিয়ে এই দুষ্কৃতীরা গত কয়েক দিন ধরে এলাকায় সন্ত্রাস চালাচ্ছে বলেও অভিযোগ। এতে সাধারণ মানুষ বীতশ্রদ্ধ হয়ে উঠছেন বলেও তিনি উল্লেখ করেন। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, উভয় ক্ষেত্রেই ঘটনার  তদন্ত শুরু হয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত মূল তৃণমূল কর্মী নুর ইসলাম মিঁয়ার স্ত্রী মনোয়ারা বিবি বলেন, ‘‘এ দিন রাতে যুব তৃণমূলের বেশ কয়েক জন আমাদের বাড়িতে এসে হামলা ও ভাঙচুর চালায়।’’ তিনি জানান, পাশাপাশি বেশ কয়েকটি বাড়িতেও তারা ভাঙচুর চালায়। গোটা ঘটনা পুলিশকে জানানো হয়েছে বলেও তিনি জানান।

স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান তৃণমূল যুব অঞ্চল সভাপতি বাপি হোসেন বলেন, ‘‘বিধায়ক খুনের ঘটনায় রবিবার সন্ধেয় এলাকায় প্রতিবাদ মিছিল করছিলাম আমরা। সেই সময় বিজেপির কিছু দুষ্কৃতী আমাদের মিছিলের উপর আক্রমণ করে। এরপরেই দুষ্কৃতীরা যুব তৃণমূলের বেশ কয়েকটি বাড়িতে ভাঙচুর চালায়।’’

যুব তৃণমূলের অজয় রায় বলেন, ‘‘আমরা কারও বাড়িতে ভাঙচুর করিনি। উল্টে আমাদের কর্মীদের উপরেই মারধর করা হয়েছে। বাড়ি ভাঙচুর হয়েছে।’’

বিজেপির পক্ষ থেকে অবশ্য যুব তৃণমূলের এই অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় এক বিজেপি নেতা বলেন, ‘‘রাজ্যের শাসকদলের নিজেদের গোষ্ঠীকোন্দল চাপা দিতেই বিজেপির ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছে।’’

বিষয়টি নিয়ে দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত বলেন ছোট ফকিরতকেয়া এলাকায় বাড়ি ভাঙচুরের ঘটনায় অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

বিধায়ক উদয়ন গুহ বলেছেন, ‘‘তৃণমূলের কোনও গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নেই। তবে কোনও গোলমাল কোথাও হলে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’’