পাটকাপাড়ার গণ্ডি ছাড়িয়ে ছেলেধরার গুজব থাবা বসাল আলিপুরদুয়ার জেলার অন্যত্রও৷ তার জেরে রবিবার ফের গণপিটুনির ঘটনা ঘটল কালচিনিতে। রবিবার ভোররাতে কালচিনির রায়মাটাং চা বাগানে ছেলেধরা সন্দেহে এক ব্যক্তিকে গণপিটুনি দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত তাকে উদ্ধার করে৷ কিন্তু ততক্ষণে গুরুতর জখম হন ওই ব্যক্তি৷ আশঙ্ককাজনক অবস্থায় তাঁকে আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পুলিশ সূত্রের খবর, আক্রান্ত ব্যক্তির নাম অমল সরকার৷ মাঝবয়সী ওই ব্যক্তির বাড়ি কুমারগ্রামের উত্তর হলদিবাড়ি এলাকায়৷ পুলিশ জানিয়েছে, শনিবার রাতে পরিচিত একজনের সঙ্গে রায়মাটাং চা বাগান এলাকায় গিয়েছিলেন অমল৷ তারপর কোনওভাবে ওই ব্যক্তির সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায় তাঁর৷ রাতের অন্ধকারে এরপরই পথ হারিয়ে ফেলেন তিনি৷ রায়মাটাং চা বাগানের নিচ লাইনে ঘোরাঘুরির সময় স্থানীয় বাসিন্দারা তাঁকে ধরে ফেলেন৷ অভিযোগ, জেরায় অমলের কথাবার্তা অসংলগ্ন মনে হতেই জনতা তাঁকে ধরে গণপিটুনি দিতে শুরু করে৷

খবর পেয়ে কালচিনি থানার পুলিশ দ্রুত যায়৷ মারমুখী জনতার হাত থেকে তাকে উদ্ধারও করে পুলিশ৷ কিন্তু ততক্ষণে গুরুতর জখম হয়ে যান তিনি৷ এরপর পুলিশ আহতকে প্রথমে লতাবাড়ি গ্রামীণ হাসপাতাল ও পরে সেখান থেকে আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে নিয়ে যায়৷ জয়গাঁর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কুন্তল বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “এই ঘটনায় স্বতঃপ্রণোদিতভাবে একটি মামলা রুজু করা হয়েছে৷” গণপিটুনির ঘটনায় জড়িতে বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে পুলিশ কর্তারা জানিয়েছেন৷

বেশ কিছুদিন ধরেই আলিপুরদুয়ার শহরের কাছে পাটপাড়ায় ছেলেধরার গুজব ছড়াচ্ছে৷ যার জেরে গত ১৬ জুন কবিরাজি ওষুধ বিক্রি করতে ওই এলাকায় যাওয়া খড়গপুরের বাসিন্দা ৬৫ বছরের এক বৃদ্ধকে ধরে গণপিটুনি দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। ওই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে দিন দু’য়েক আগে আলিপুরদুয়ার শহরের পলাশবাড়িতে চোর অভিযোগে এক যুবককে গণপিটুনি দেওয়া হয়। পুলিশের তরফে অবশ্য দাবি করা হয়, পাটকাপাড়া-সহ জেলার সবকটি থানা এলাকায়, বিশেষ করে ছেলেধরা গুজবে সাধারণ মানুষের হাতে আইন তুলে নেওয়া রুখতে প্রচার চালানো হবে৷ তারপরও গুজব যে পাটকাপাড়ার গন্ডি ছড়িয়ে জেলার অন্যত্র ছড়াতে শুরু করেছে, তা রায়মাটাং চা বাগানের এই ঘটনাই প্রমাণ করে বলে অভিযোগ উঠেছে৷

এদিন রায়মাটাং বাগান এলাকায় পুলিশের তরফে প্রচার চালানো হয়৷ আশাপাশের এলাকাতেও এই প্রচার শুরু করা হবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও।সাবস্ক্রাইব করুনআমাদেরYouTube Channel - এ।