কেটে গিয়েছে কুড়িটা বছর। কিন্তু, এখনও পুরুলিয়া জেলায় তৃণমূলের ‘প্রথম শহিদ’ প্রধান সিং মুড়ার খুনের ঘটনায় অভিযুক্তেরা শাস্তি পেল না। বাঘমুণ্ডির বাড়েরিয়া মোড়ে রবিবার প্রধানের মৃত্যুদিনে তাঁর আবক্ষ মূর্তির পাদদেশে স্মরণসভা করে দোষীদের শাস্তির দাবি উঠল আরও এক বার। 

বাঘমুণ্ডি ব্লকের যুব তৃণমূল সভাপতি শশীপ্রসাদ মাহাতো জানান, ১৯৯৮ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রধান খুন হন। তখন অযোধ্যাপাহাড়ে জলবিদ্যুৎ প্রকল্প গড়ে উঠছে। সেই প্রকল্পের শ্রমিকদের ‘শোষণে’র বিরুদ্ধে গ্রামে গ্রামে ঘুরে জনমত গড়ছিলেন প্রধান। দ্রুত শ্রমিকদের মধ্যে প্রধানের জনপ্রিয়তা বাড়ছিল। ১৯৯৮ সালে পঞ্চায়েত নির্বাচনে নিজের গ্রাম থেকে তৃণমূলের প্রতীকে জয়ী হন প্রধান। তারপরেই বাড়েরিয়া মোড়ে দিনের আলোয় প্রধানকে কুপিয়ে খুন করে আততায়ীরা। 

প্রধানের বৌদি জ্যোতিদেবী এ দিন বলেন, ‘‘মৃত্যুর পরে আমরা ওঁর শ্রাদ্ধানুষ্ঠানও করিনি। রাজ্যে পালাবদলের পরে ২০১১ সালে তাঁর পারলৌকিক ক্রিয়াকর্ম করেছি। ভেবেছিলাম, এ বার প্রধানের আততায়ীরা শাস্তি পাবে। কিন্তু, এক জনও শাস্তি পায়নি। তারা শাস্তি পেলেই তবেই প্রধানের আত্মা শান্তি পাবে।’’ দলেরই একটি সূত্রে জানাচ্ছে, অভিযুক্তদের ধরা হয়েছিল। কিন্তু, আদালতে তা প্রমাণিত হয়নি।  

শশীপ্রসাদ বলেন, যেখানে প্রধানের দেহ পড়েছিল, ২০১১ সালের পরে সেখানেই তাঁরা মূর্তি বসান। শুভেন্দু অধিকারী সেই মূর্তির আবরণ উন্মোচন করেছিলেন। প্রধানের মৃত্যুদিনে দিনভর এখানে নানা কর্মসূচি পালিত হয়। এ দিন জেলা যুব সভাপতি সুশান্ত মাহাতো, যুবনেতা গৌতম রায়-সহ দলের অনেকেই সেখানে গিয়েছিলেন।