গাছ লাগিয়ে আর সবুর করতে হবে না। চটজলদি ‘ফল’ মিলে যেতে পারে। অরণ্য সপ্তাহে এমনই ডাক দিয়েছে বিষ্ণুপুর মহকুমা প্রশাসন। বন দফতর থেকে নিখরচায় দেওয়া হবে চারা গাছ। যে ক্লাব, সংস্থা বা স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সব থেকে বেশি সংখ্যায় গাছ লাগাতে পারবে, তারাই পাবে পুরস্কার। তার জন্য শুধু ছবি তুলে পাঠিয়ে দিতে হবে মহকুমাশাসকের ইমেল-ঠিকানায়।

১৪ জুলাই থেকে ২০ জুলাই পর্যন্ত রাজ্য জুড়ে অরণ্য সপ্তাহ পালন হচ্ছে। সেই সূত্রে বিষ্ণুপুর পুরসভা এলাকায় এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে মহকুমা প্রশাসন। মহকুমাশাসক (বিষ্ণুপুর) মানস মণ্ডল জানান, আগে গাছ লাগানোর জন্য একটা জায়গা বেছে ছবি তুলে রাখতে হবে। তার পরে গর্ত খুঁড়ে আর এক দফা ছবি তোলা। আর একটা ছবিতে সমস্ত চারাগাছ এক জায়গায় দেখাতে হবে। সমস্তটা ইমেল করে দিতে হবে নির্দিষ্ট ঠিকানায়। তবে সেটা করে ফেলতে হবে ২০ তারিখের মধ্যে। মহকুমা প্রশাসন পরিদর্শন করবে। তার পরে পুরস্কারের ব্যাপার স্যাপার। 

বিষ্ণুপুর রেঞ্জ আধিকারিক তপোব্রত রায় জানান, বিষ্ণুপুর রেঞ্জ অফিস ছাড়ও চৌকান ও হেড়া পর্বত বিট থেকে বিনা খরচে চারাগাছ মিলবে। তবে গাছ পেতে হলে নিয়ম মেনে আবেদন করতে হবে। মাথাপিছু টাকা ছাড়াই মিলবে পাঁচটি করে চারা। তিনি জানিয়েছেন, বিষ্ণুপুর রেঞ্জের ২৯টি যৌথ বনসুরক্ষা কমিটির প্রত্যেকে  অরণ্য সপ্তাহে বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচি পালন করবে। পাশাপাশি একদিন প্রীতি ফুটবল টুর্নামেন্টেও হবে। বিষ্ণুপুরের পোড়ামাটির হাটে বৃক্ষ রোপণ করে হবে বিশেষ অনুষ্ঠান। 

এই সমস্ত উদ্যোগে সবুজের অভিযান কী রকম হয়, সেই দিকেই এখন তাকিয়ে প্রশাসন।