• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

উজ্জ্বলা গ্যাসে ‘দুর্নীতি’, ধৃত বিজেপি নেতা

arrest
প্রতীকী ছবি।

প্রধানমন্ত্রী উজ্জ্বলা যোজনায় গ্যাসের সংযোগ সংক্রান্ত দুর্নীতির অভিযোগে পুরুলিয়া শহরের এক বিজেপি নেতাকে গ্রেফতার করল পুলিশ। 

পুরুলিয়া সদর থানা এলাকার বাসিন্দা বিজয়া সিং নামে এক মহিলা বৃহস্পতিবার পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। সে রাতেই অভিযুক্ত রাজেশ মণ্ডলকে গ্রেফতার করে জেলা পুলিশের দুর্নীতি দমন শাখা। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃতের বাড়ি পুরুলিয়া সদর থানার তেলকলপাড়ায়। পুরুলিয়ার পুলিশ সুপার এস সেলভামুরুগন বলেন, ‘‘সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত চলছে।’’

রাজেশ বিজেপির পুরুলিয়া শহর উত্তর মণ্ডলের সাধারণ সম্পাদক। বিজেপি নেতৃত্ব অবশ্য রাজেশকে ‘রাজনৈতিক কারণে ফাঁসানো হয়েছে’ বলে দাবি করেছেন। জেলা পুলিশের দুর্নীতি দমন শাখার দাবি, প্রাথমিক তদন্তে তারা জানতে পেরেছে, ওই মহিলার নামের গ্যাসের সংযোগ রাজেশ নিয়েছিলেন। এই তথ্য সামনে আসার পরে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আইন, বিশ্বাসভঙ্গ, সরকারি আদেশ এবং রান্নার গ্যাস নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত নির্দেশিকা অমান্য করার অভিযোগ আনা হয়েছে।

শুক্রবার অভিযুক্তকে পুরুলিয়া জেলা আদালতে তোলা হলে বিচারক তাঁকে ১৪ দিন জেল-হাজতে রাখার নির্দেশ দেন।

পুলিশের কাছে দায়ের করা অভিযোগে ওই মহিলা দাবি করেছেন, ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী উজ্জ্বলা যোজনা প্রকল্পে রান্নার গ্যাসের সংযোগের জন্য তিনি আবেদন করেছিলেন। কিন্তু এত দিনেও তিনি সেই সংযোগ পাননি।

ওই মলিহার দাবি, গ্যাসের আনুসঙ্গিক কিছু সরঞ্জাম কেনার জন্য তিনি এলাকার নেতা রাজেশকে কিছু টাকা দিয়েছিলেন বলে তাঁর দাবি। কিছু দিন আগে তাঁরা জানতে পারেন, বিজয়াদেবীর নামে গ্যাসের সংযোগ বরাদ্দ করা হলেও, তা অন্য কাউকে দেওয়া হয়েছে।

কী ভাবে তা জানলেন?

বিজয়াদেবীর স্বামী সুকুমার সিং-এর দাবি, ‘‘কয়েকদিন আগে ব্যাঙ্কে খোঁজ করতে গিয়ে জানতে পারি, স্ত্রীর অ্যাকাউন্টে গ্যাসের ভর্তুকির টাকা ঢুকেছে।’’

সুকুমারবাবুর প্রশ্ন, ‘‘আমার স্ত্রী গ্যাসের সংযোগ না পাওয়া সত্ত্বেও ওই টাকা এল কী ভাবে? খোঁজ করে জানতে পারি, স্ত্রী-র নামের গ্যাসের সংযোগ অন্য কেউ নিয়েছে।’’ তার পরেই তাঁরা আরও খোঁজ করে রাজেশের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

পুলিশ জানিয়েছে, ধৃতের হেফাজত থেকে দু’টি ছোট সিলিন্ডার-সহ মোট ছ’টি গ্যাসের সিলিন্ডার ও ন’টি আভেন উদ্ধার করা হয়েছে। তাঁকে কী ভাবে সিলিন্ডার দেওয়া হল, তা জানতে পুলিশ গ্যাসের এজেন্টের খোঁজ শুরু করেছে বলে জানিয়েছে।

চেষ্টা করেও রাজেশের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে বিজেপির পুরুলিয়া জেলা সভাপতি বিদ্যাসাগর চক্রবর্তীর দাবি, ‘‘তৃণমূল মিথ্যা মামলায় আমাদের ওই নেতাকে ফাঁসিয়ে দিয়েছে।’’

বিজেপির পুরুলিয়া দক্ষিণ শহর মণ্ডল সভাপতি সত্যজিৎ অধিকারী দাবি করেন, ‘‘মহিলারা যাতে উজ্জ্বালা যোজনার গ্যাসের সংযোগ পান, তাই আমাদের কেউ কেউ সে কাজে তাঁদের সহায়তা করেন। সংযোগ বরাদ্দ হলে গ্যাস তুলে তাঁদের বাড়িতেও পৌঁছে দেন। এটা পারস্পরিক সহায়তা ও বিশ্বাসের ব্যাপার। রাজেশকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে।’’

তৃণমূলের পুরুলিয়া শহর কমিটির সভাপতি বৈদ্যনাথ মণ্ডলের পাল্টা দাবি, ‘‘আমাদের দল কাউকে ফাঁসায় না। মানুষকে ওই বিজেপি নেতা কেমন সহায়তা দিয়েছেন, তা ওই ঘটনায় পরিষ্কার হয়ে গেল। পুলিশের তদন্তেই সব সামনে আসবে।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন