রীতিমতো ‘দরবার’ বসিয়ে মানুষের সমস্যা শুনলেন পুরুলিয়ার বিজেপি সাংসদ জ্যোতির্ময় সিংমাহাতো। দিল্লি থেকে ফিরে সোমবার পুঞ্চার ছিরুডি এবং মানবাজারে এসেছিলেন তিনি। সাংসদকে নিজেদের সমস্যা জানাতে হাজির হয়েছিলেন দুই এলাকার বহু বাসিন্দা। উঠে আসে  রাস্তা সংস্কার এবং রেল পরিষেবার দাবিও। 

জ্যোতির্ময়বাবু বলেন, ‘‘জেলাবাসীর নানা অভিযোগ এবং সমস্যা  জেনে রাখছি। প্রয়োজনে জেলাশাসকের সঙ্গে কথা বলব।’’ বিজেপি নেতা বিবেক রঙ্গার দাবি, ‘‘এ দিন সাংসদকে সমস্যার কথা জানাতে দুই জায়গাতেই এসেছিলেন বহু মানুষ।’’

মানবাজারের বনকাটা গ্রামের বাসিন্দা মান্নান আনসারি, নবাব আনসারি সাংসদকে জানান, তাঁদের পাড়ায় বিদ্যুৎ নেই। বিশরি পঞ্চায়েতের কুরকুটা গ্রামের দিলীপ বাউরি সাংসদকে জানান, সামান্য বৃষ্টিতেই গ্রামে ঢোকার রাস্তা জলমগ্ন হয়ে যায়। স্কুলশিক্ষক তাপস গঙ্গোপাধ্যায় জানান, আদ্রা থেকে পুঞ্চা ও মানবাজার হয়ে ঝাড়গ্রাম যাওয়ার জন্য রেললাইনের দাবি লিখিত ভাবে জানিয়েছি। 

মানবাজার ১ মণ্ডলের বিজেপি সভাপতি বাণীপদ কুম্ভকার বলেন, ‘‘সমস্ত অভিযোগ ডায়েরিতে লিখে নিয়েছেন সাংসদ। স্থানীয় স্তরের সমস্যা নিয়ে জেলা প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলবেন।’’ জ্যোতির্ময়বাবুর এই উদ্যোগকে ‘লোক দেখানো’ বলে কটাক্ষ করেন তৃণমূল নেতা তথা মানবাজার পঞ্চায়েত সমিতির সহ-সভাপতি দিলীপ পাত্র। তাঁর তীর্যক মন্তব্য, ‘‘এ সব রাজনীতির চমক ছাড়া কিছু নয়।’’