• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

পোস্টার ঘিরে চাপানউতোর বিজেপি-তৃণমূলে

Maoist Poster
এমন একাধিক পোস্টার মিলেছে। নিজস্ব চিত্র

তৃণমূল নেতাদের উদ্দেশ করে মাওবাদী নামাঙ্কিত অনেকগুলি হুমকি পোস্টার পড়ল পাড়ুই থানার মঙ্গলডিহি অঞ্চলে। পোস্টারে লেখা—‘জনগণের টাকা ফেরত দাও, নাহলে জীবন দাও’। ওই সব পোস্টার কারা দিয়েছে, তা পুলিশ তদন্ত করে দেখেছে। তবে, এই ঘটনার পিছনে বিজেপি-কে দায়ী করেছে তৃণমূল। বিজেপি অভিযোগ অস্বীকার করেছে। 

পুলিশের অবশ্য দাবি, এই পোস্টারগুলি মাওবাদীদের লেখা নয়। জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিংহ বলেন, ‘‘এগুলি মাওবাদীদের লেখা পোস্টার নয়। যারা এই কাজ করেছে, তাদের কয়েক জনের নাম আমরা জানতে পেরেছি। খুব তাড়াতাড়ি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, বুধবার সকালে পাড়ুই থানা সংলগ্ন মঙ্গলডিহি অঞ্চলের গোলাপবাগ, হাঁসরা, ব্রাহ্মণডিহি, চৌমন্ডলপুর  প্রভৃতি গ্রামের রাস্তার মোড়ে থাকা প্রতীক্ষালয়ে, পঞ্চায়েতের কার্যালয়ের গেটে, বিভিন্ন বাড়ির দেওয়ালে সাদা কাগজের উপরে লাল কালি দিয়ে লেখা এই পোস্টারগুলি দেখতে পান স্থানীয় বাসিন্দারা। তৃণমূলের ইলামবাজার ব্লক সভাপতি,  কার্যকরী সভাপতি ও মঙ্গলডিহি অঞ্চলের অঞ্চল সভাপতি-সহ একাধিক নেতাকর্মীর নাম রয়েছে পোস্টারগুলিতে। খবর জানাজানি হওয়ার পরে বেশির ভাগ জায়গায় পোস্টারগুলি ছিঁড়ে ফেলা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে কিছু পোস্টার নিয়ে যায়।

এই পোস্টার ঘিরে রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু হয়েছে। মহম্মদ বাজারের এদিন তৃণমূলের কর্মিসভায় পোস্টার প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তৃণমূলের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল বলেন, ‘‘এটা বিজেপির লোকেদের কাজ। ওরাই মাওবাদী, ওরাই উগ্রপন্থী, ওরাই সব! যা কিছু করেছে ওরাই করেছে! পাড়ুই থানা এলাকায় আবার মাওবাদী কোথায় আছে?’’

একই সুরে তৃণমূলের ব্লক সভাপতি ফজলুর রহমানের অভিযোগ, এই সমস্ত বিজেপির কাজ। মাওবাদী বলে এখানে কিছু নেই। তাঁর দাবি, ‘‘এ দিন মঙ্গলডিহি অঞ্চলে তৃণমূলের পক্ষ থেকে বুথ কমিটির বৈঠক ডাকা হয়েছিল। তা বানচাল করতে এবং এলাকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করার জন্য বিজেপি-র লোকজন এই কাজ  করেছে। আমরা পুলিশকে বলেছি, ঘটনার সঠিক তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে।’’ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিজেপির জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল। তিনি বলেন, ‘‘বিজেপি এই ধরনের নোংরা রাজনীতি করে না। এই কাজ তৃণমূল করিয়ে আমাদের ঘাড়ে ঘাড়ে দোষ চাপাতে চাইছে। তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পের টাকা যেভাবে আত্মসাৎ করছেন, সেই ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ বলা যেতে পারে এই ঘটনাকে। আমরা প্রশাসনকে নিরপেক্ষ তদন্ত করার জন্য বলব।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন