• শুভদীপ পাল 
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

জন্মদিন পালনেও দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে বিজেপি’র

BJP
সিউড়িতে বিজেপির অনুষ্ঠানে কালোসোনা মণ্ডল-সহ অন্যরা। শুক্রবার। নিজস্ব চিত্র

দীনদয়াল উপাধ্যায়ের জন্মদিবস পালনকে কেন্দ্র করে আবার প্রকাশ্যে এল বিজেপি-র গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। দলের কিসান মোর্চার জেলা সভাপতি সোমনাথ ঘোষের আয়োজিত অনুষ্ঠানে দেখা গেল দল থেকে সদ্য বহিষ্কৃত নেতা কালোসোনা মণ্ডল এবং পলাশ মিত্রকে। উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন জেলা বিজেপি সভাপতি রামকৃষ্ণ রায়, বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সদস্য অনিল সিংহ-সহ প্রাক্তন পদাধিকারীরা। এঁরা সকলেই বর্তমান জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডলের বিরোধী হিসেবে পরিচিত। 

শুক্রবার সকালে সিউড়ির সাহিত্য পরিষদ হলে ওই অনুষ্ঠান হয়। অন্য দিকে বিজেপি-র ক্ষমতাসীন গোষ্ঠী সাঁইথিয়া, বোলপুর এবং ইলামবাজারে দীনদয়ালের জন্মদিন পালন করেন। বিক্ষুদ্ধ বিজেপি নেতা-কর্মীরা একান্তে জানিয়েছেন, এই অনুষ্ঠান সামনে রেখে তাঁরা মূলত একত্রিত হয়েছেন বিধানসভা ভোটের আগে নিজেদের কৌশল তৈরি করতে। 

এ দিন প্রথমে জন্মদিন পালন করা হয়। তার পরেই শ্যামাপদ মণ্ডল এবং বিজেপি-র বর্তমান জেলা কমিটির সমালোচনা শুরু হয়। সূত্রের খবর, সেখানে প্রত্যেক বক্তা শ্যামাপদ এবং জেলা কমিটিকে চড়া ভাষায় আক্রমণ করেন। এক বিজেপি নেতা এমনও হুঁশিয়ারি দেন যে, তাঁরা জেলা সভাপতির বিরুদ্ধেই ‘গেরিলা যুদ্ধ’ করবেন! বিধানসভা ভোটের আগে রাজ্য যদি শ্যামাপদের জায়গায় অন্য কাউকে দায়িত্ব দেয়, তাহলে ঠিক আছে। অন্যথা তাঁরাই তাঁর বিরুদ্ধে গণতান্ত্রিক ভাবে আন্দোলন করবেন।

বিজেপি-র বিক্ষুব্ধ অংশের অভিযোগ, জেলা সভাপতি দলের ভাল সংগঠকদের বাদ দিয়ে সেই জায়গায় ‘অযোগ্য’ লোকেদের এনেছেন। পরে সোমনাথ ঘোষ সংবাদমাধ্যমের সামনেও শ্যামাপদের বিরুদ্ধে নিজের ক্ষোভ উগরে দেন। তিনি বলেন, ‘‘শ্যামাপদ দলেরই বিরুদ্ধাচারণ করছেন, ঠিক পদ্ধতি মেনে পার্টি পরিচালনা করছেন না। আমরা দলে সিস্টেম ফেরাতে চাইছি।’’ তাঁর আরও দাবি, ‘‘জেলা সভাপতি অনেক অনৈতিক কাজ করছেন। আমরা রাজ্য নেতৃত্বকে বারবার জানাচ্ছি। এ বার রাজ্য সিদ্ধান্ত নিলে ভাল। অন্যথা দলের ক্ষতি না করে আমাদেরকে নিজেদের ভাগ্য নিজেদেরকেই তৈরি করতে হবে।’’ 

দলের একটি অংশের এই সব অভিযোগ সম্পর্কে কোনও মন্তব্য করতে চাননি শ্যামাপদ। শুধু বলেছেন, ‘‘সোমনাথ ঘোষ বিজেপির কিসান মোর্চার সভাপতি নন। এখনও সভাপতির নাম ঘোষণাই হয়নি। তা ছাড়া দল যাঁদের বহিষ্কার করেছে, তাঁদেরকে  বাদ দিয়ে আমি সব অনুষ্ঠানে সকলকেই আমন্ত্রণ জানাই।’’  

শ্যামাপদ জেলা সভাপতি হওয়ার পর থেকেই দলের একটি অংশের সঙ্গে তাঁর অনুগামীদের সংঘাত বেধেছে। এমনকি মণ্ডল সভাপতি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সিউড়িতে শ্যামাপদের বিরুদ্ধে মিছিল করেন এবং কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ দেখান বিক্ষুদ্ধ গোষ্ঠীর লোকজন। তাঁরা রাজ্য নেতৃত্বের দ্বারস্থও হয়েছিলেন। রাজ্য নেতৃত্ব যদিও বিক্ষুব্ধদের অভিযোগকে তেমন আমল দেননি। মাসখানেক আগেই কালোসোনা মণ্ডল এবং দেবাশিস মিত্রকে দলবিরোধী কাজের অভিযোগে বহিষ্কার করা হয়। বিক্ষুব্ধ গোষ্ঠীকে দুর্বল করতে ওই দুই নেতাকে বহিষ্কার করা হয় বলে অভিযোগ শ্যামাপদ-বিরোধীদের। এ দিনের ঘটনা বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ফের সামনে আনল। 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন