জেলার দু’প্রান্ত থেকে বোমা উদ্ধার করল পুলিশ।
দখলবাটি গ্রামে শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত তল্লাশি চালানো হয়। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকালে দখলবাটি গ্রাম সংলগ্ন রামপুরহাট পারুলিয়া রাস্তার ধারে একটি বন্ধ চায়ের দোকান এবং একটি পরিত্যক্ত দোকান থেকে বোমা উদ্ধার হয়েছে। বোমা উদ্ধারের পরে পুলিশ বোলপুরে বম্ব স্কোয়াডে খবর দেয়। বম্ব স্কোয়াড সন্ধ্যা পর্যন্ত না আসায় ঠিক কত বোমা উদ্ধার হয়েছে তা জানাতে পারেনি পুলিশ। 

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দখলবাটি এবং লাগোয়া গ্রাম দানগ্রাম এর মাঝামাঝি মাঠের পাম্প-এর ঘরে বোমা তৈরির মশলা মিলেছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার যে দুটি দোকান থেকে বোমা উদ্ধার হয়, তার মধ্যে সম্প্রতি দখলবাটি গ্রামের তৃণমূল কর্মী মোসারফ হোসেন খুনে প্রধান অভিযুক্ত কামা শেখের জামাইবাবুর চায়ের দোকান আছে। অন্য পরিত্যক্ত দোকানটি কামার অনুগামী বাচ্চু শেখের। দু’জনেই ঘটনার পর থেকে পলাতক।

শুক্রবার সকালে সিউড়ি থানা এলাকার কেন্দুয়া মালপাড়ার কাছে রেললাইনের পাশ থেকেও বোমা উদ্ধার হয়েছে। স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সকাল ন’টা নাগাদ কেন্দুয়া মালপাড়ার কয়েক জন মৎস্যজীবী মাছ ধরার জন্য লাইন ধরে ক্যানালে যাচ্ছিলেন। সেই সময় লাইনের পাশে বোমাটি পড়ে থাকতে দেখেন। জিআরপি এবং সিউড়ি থানায় খবর দেন। সিউড়ি পুলিশ গিয়ে বোমা উদ্ধার করে নিয়ে যায়। কে বা কারা বোমাটি রেখেছে সেই সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি। স্থানীয়দের অনুমান, কিছু দিন আগে ওই চত্বরে কিছু দুষ্কৃতী বোমাবাজি করে। তাদের কেউ বোমা ফেলেছে অথবা বোমাবাজির দিন থেকেই বোমাটি পরে আছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।