• নিজস্ব সংবাদদাতা 
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে ‘ভূতের’ লিফলেট

Councillor
লিফলেট হাতে কাউন্সিলর। নিজস্ব চিত্র

এক তৃণমূল কাউন্সিলরকে দুষে লিফলেট ছড়াল সিউড়িতে। পুরভোটের আবহে এই ঘটনায় গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ছায়া দেখছেন এলাকার মানুষজন। যদিও তৃণমূলের জেলা নেতৃত্ব গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন।

বুধবার সকালে সিউড়ি পুর এলাকার ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের হাটজনবাজার কো-অপারেটিভ কলোনি এলাকায় দেখা যায় চারিদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে আছে কাউন্সিলর, খিতেন দাসের বিরুদ্ধে লিফলেট। যেখানে তুলে ধরা হয়েছে কাউন্সিলর বিরুদ্ধে একাধিক দুর্নীতির অভিযোগ। যেমন, আবাস যোজনার বাড়ি থেকে টাকা নেওয়া, রাস্তা ঢালাই, কলের পাইপ, রাস্তার আলো বসানোর জন্য নিজের পছন্দের ঠিকাদারকে বরাত পাইয়ে দেওয়া এবং সেখানেও দুর্নীতির অভিযোগ করা হয়েছে ওই লিফলেটে। একই সঙ্গে আগামী পুরভোটে ‘খিতেন দাসকে আর না’ বলে স্লোগানও তোলা হয়েছে ওই লিফলেটে।  তবে লিফলেটে একাধিক অভিযোগ করা হলেও কে বা কারা এই লিফলেট ছড়িয়েছে সে সম্পর্কে স্পষ্ট কোনও তথ্য দেওয়া হয়নি। কেবল লিফলেটের নিচে লেখা হয়েছে ‘লেখক ভূত’।

ঘটনার খবর পাওয়া মাত্রই এলাকায় যান ওই কাউন্সিলর। তিনি ওই লিফলেটও দেখেন। এরপরেই তিনি ঘটনার প্রেক্ষিতে সিউড়ি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। খিতেন বলেন, ‘‘কে বা কারা এটা ছড়িয়েছে সেটা আমার জানা নেই। আসলে সামনেই পুরভোট তাই আমাকে বদনাম করার জন্যই এই ধরনের লিফলেট ছড়ানো হয়েছে।’’ তাঁর পাল্টা দাবি, মানুষ আগামী পুরভোটেও আমাকে কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চাইছেন। তাঁর কথায়, ‘‘যাঁদের গায়ে লাগছে তাঁরাই এই ধরনের কাজ কর‍ছে। ওই লিফলেটের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করা হোক তাহলেই প্রমাণ হয়ে যাবে যে অভিযোগগুলি সত্যি না মিথ্যা।’’ 

স্থানীয় বাসিন্দারা ও তৃণমূলের নীচুতলার কর্মীদের অনেকের অবশ্য দাবি, ওই এলাকায় তৃণমূলের দু’টি গোষ্ঠী রয়েছে। দুই গোষ্ঠীর মধ্যে প্রকাশ্যে সংঘাত না হলেও দীর্ঘদিন ধরেই ‘ঠান্ডা লড়াই’ চলছে। এই ঘটনা সেই গোষ্ঠীদ্বন্দ্বেরই ফলাফল। তবে দলের অন্য নেতারা গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন। সিউড়ি ২ ব্লকের তৃণমূলের প্রাক্তন যুব সভাপতি পবিত্র দাস বলেন, ‘‘কোনও গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নেই। যারা এ সব কথা বলছে তারা বিজেপির সঙ্গে যুক্ত। আমাদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করার জন্যই এমন বলা হয়েছে।’’ বিজেপিকে দুষেছেন পুরভোটকে সামনে রেখে সিউড়ি পুরসভায় তৃণমূলের পক্ষ থেকে গঠিত কমিটির চেয়ারম্যান বিকাশ রায়চৌধুরীও। তিনি বলেন, ‘‘ওই লিফলেট বিজেপি ছড়িয়েছে। এ রকম ঘৃণ্য রাজনীতি কেবল বিজেপি করতে পারে।’’

কিছুদিন আগে সাঁইথিয়া পুরএলাকার এক কাউন্সিলরের স্বামীর বিরুদ্ধেও কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ তুলে লিফলেট বিলি করা হয়৷ সেই ঘটনার জন্যও বিজেপি দায়ী বলে অভিযোগ তুলেছিল তৃণমূল। বিজেপির জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল অবশ্য এই কাণ্ডের জন্য তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকেই দায়ী করেছেন। তিনি বলেন, ‘‘ওটা তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ফলাফল। ওই লিফলেটে ওই কাউন্সিলরের সম্পত্তি সম্পর্কে যেভাবে পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ রয়েছে তা দেখে এটা স্পষ্ট তৃণমূলের কেউ ওই লিফলেট বিলি করেছেন। যত পুরভোট এগাবে এরকম আরও লিফলেট বেরিয়ে আসবে।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন