এলাকায় কোনও অঘটন ঘটে গেলে বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের কর্মীদের অপেক্ষায় বসে থাকতে হয়। কিন্তু তাঁদের এসে পৌঁছতে পৌঁছতে গড়িয়ে যায় বেশ কিছুটা সময়। আগুন লাগা, ভূমিকম্প, গাছের তলায় চাপা পড়া— যা-ই ঘটুক না কেন, চটজলদি কী ভাবে তার মোকাবিলা করা যায় সেটাই এ বার শেখানো হবে স্থানীয় যুবক যুবতীদের। মানবাজারে শুরু হয়েছে মহকুমা স্তরের তিন দিনের প্রশিক্ষণ শিবির। মানবাজার ১ ব্লকে ৪ থেকে ৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত শিবিরটি হচ্ছে।

বুধবার ব্লকের মাঠে গিয়ে দেখা গেল, জনা পঞ্চাশ যুবক যুবতী প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। জানা গেল, মানবাজার ১, মানবাজার ২, বরাবাজার, বান্দোয়ান  ও পুঞ্চা থেকে দশ জন করে এসেছেন। মহকুমা বিপর্যয় মোকাবিলা আধিকারিক (মানবাজার) কাশীনাথ পাল বলেন, ‘‘ব্লক এলাকার কোথাও বিপর্যয় ঘটলে প্রাথমিক ভাবে এই যুবক যুবতীরাই সামাল দেবেন। সেই মতো প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।’’ তিনি জানান, প্রশিক্ষণটি চলছে অসামরিক প্রতিরক্ষা দফতরের পক্ষ থেকে।

অসামরিক প্রতিরক্ষা দফতরের এক আধিকারিক জানান, শিবিরে মূলত আধুনিক যন্ত্রপাতির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হচ্ছে। শেখানো হচ্ছে, বিপর্যয় ঘটলে কী ভাবে মাথা ঠান্ডা রেখে উদ্ধার কাজ চালাতে হবে। মানবাজার মহকুমা অফিসের এক আধিকারিক জানান, বিপর্যয়ের গুরুত্ব বুঝে যে কোনও ব্লক থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের ঘটনাস্থলে আনা যেতে পারে। বিডিও (মানবাজার ১) নীলাদ্রি সরকার বলেন, ‘‘বিপর্যয় মোকাবিলার জন্যে কী ধরনের যন্ত্রপাতির প্রয়োজন সেই ব্যাপারে আধিকারিকদের থেকে জানব।’’

মঙ্গলবার প্রশিক্ষণ শিবিরের উদ্বোধনে এসডিও (মানবাজার) পীযূষকান্তি দাস, মানবাজার ১ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি পুষ্প দাস, সহসভাপতি দিলীপ পাত্র প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।