বুথে থাকছে ‘শিশু ও মা’ কক্ষ
ভোটকেন্দ্রের ১০০ মিটারের মধ্যে থাকতে পারেন কেবল ভোটার এবং ভোটকর্মী। সে ক্ষেত্রে ‘শিশু ও মা কক্ষ’ পরিচালনায় থাকা মহিলা কর্মীরাও যাতে বুথে থাকতে পারেন, তার জন্য নির্বাচন কমিশনের অনুমতি চাওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মহকুমাশাসক।
ec

চড়া রোদে ভোটার লাইনে সদ্যোজাত শিশুকে কোলে নিয়ে দাঁড়িয়ে মা। খিদেয় চিৎকার করছে কোলের সন্তান। কিন্তু কী করে প্রকাশ্যে স্তন্যদান করবেন মা? উপায় বার করেছে নির্বাচন কমিশন।

রঘুনাথপুর মহকুমা প্রশাসনের উদ্যোগে এ বার প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে থাকবে একটি করে ‘শিশু ও মা কক্ষ’। যেখানে মায়ের সঙ্গে আসা খুদেরা থাকতে পারবে। মা-ও তাঁর সদ্যোজাতকে স্তন্যদান করতে পারবেন। ইতিমধ্যেই এই কক্ষ তৈরির কাজ এগিয়েছে অনেকটা। রঘুনাথপুরের মহকুমাশাসক আকাঙ্খা ভাস্কর জানাচ্ছেন, রঘুনাথপুর, কাশীপুর ও পাড়া বিধনাসভার সমস্ত বুথেই থাকছে এই কক্ষ।

নির্বাচন কমিশনের পাঠান একটি নির্দেশিকা থেকেই বুথে ‘শিশু ও মা কক্ষ’ তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছে মহকুমা প্রশাসন। প্রশসানের এক আধিকারিক বলেন, ‘‘ভোটারদের জন্য বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা দেওয়ার কথা বলেছে কমিশন। সেই সম্পর্কিত তালিকাও পাঠান হয়েছে জেলায়। সেখানেই বুথে ‘ক্রেশ’ তৈরির বিষয়টি কমিশন উল্লেখ করেছিল।’’ 
প্রশাসন সূত্রের খবর, ভোটকেন্দ্রের একটি ঘরেই তৈরি হবে এই কক্ষ। দায়িত্বে থাকবেন একজন মহিলা ‘বুথ লেবেল অফিসার’ বা অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রের কর্মী। ভোটের লাইনে মায়ের সঙ্গে থাকা শিশুদের সদস্যা সমস্যা হলে তাদের ওই কক্ষে নিয়ে আসবেন বুথ পরিচালনায় দায়িত্বে থাকা মহিলারা। মায়ের ভোট দেওয়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাঁরাই শিশুদের দেখভাল করবেন। ওই কক্ষে সদ্যজাত সন্তানকে স্তন্যদানও করাতে পারবেন মায়েরা।

ভোটকেন্দ্রের ১০০ মিটারের মধ্যে থাকতে পারেন কেবল ভোটার এবং ভোটকর্মী। সে ক্ষেত্রে ‘শিশু ও মা কক্ষ’ পরিচালনায় থাকা মহিলা কর্মীরাও যাতে বুথে থাকতে পারেন, তার জন্য নির্বাচন কমিশনের অনুমতি চাওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মহকুমাশাসক।

পুরুলিয়ার জেলাশাসক রাহুল মজুমদার বলেন, ‘‘ক্রেশের ধারণাকে ভিত্তি করে বুথগুলিতে ‘শিশু ও মা’ কক্ষ তৈরিতে উদ্যোগ হয়েছে রঘুনাথপুর মহকুমা প্রশাসন।” সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই রঘুনাথপুরের মহকুমাশাসক আকাঙ্খা ভাস্কর ইতিমধ্যেই সমস্ত ব্লকের বিডিওদের সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক করেছেন। বিডিও-রা বুথের পরিকাঠামো দেখছেন।
মহকুমাশসাক জানান, ‘‘শিশু ও মা কক্ষ তৈরির প্রাথমিক কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বুথের কোথায় বা কোন ঘরে ওই কক্ষ হবে তা বিডিও-রা দেখে নিয়েছেন। একই সঙ্গে বিডিও-রা ব্লকের সুসংহত শিশু বিকাশ প্রকল্পের আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক করে ওই কক্ষে পরিচালনার জন্য অঙ্গনওয়াড়ি কর্মীদের তালিকাও প্রস্তুত করেছেন।’’ তাঁর সংযোজন, ‘‘ অনেক মহিলাই সদ্যজাত সন্তানকে নিয়ে ভোটের লাইনে দাঁড়ান। সকলের সামনে সদ্যজাতকে স্তন্যদান করতে পারেন না তাঁরা। ‘মা ও শিশু কক্ষ’ তৈরি হলে মহিলাদের ওই সমস্যা মিটবে।” 
প্রতি সেক্টরে একটি করে মডেল ‘শিশু ও মা কক্ষ’ তৈরির সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন মহকুমাশাসক। সূত্রের খবর, সেখানে রাখা হবে শিশুদের জন্য খেলনা ও পড়ার সামগ্রী।

২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের ফল

  • সকলকে বলব ইভিএম পাহারা দিন। যাতে একটিও ইভিএম বদল না হয়।

  • author
    মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূলনেত্রী

আপনার মত