• অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

নামেই জলের এটিএম, ক্ষোভ

Water ATM
অকেজো। নিজস্ব চিত্র

শহরবাসী এবং শহরে বিভিন্ন কাজে আসা সাধারণ নাগরিকদের জন্য পানীয় জলের সুবিধার জন্য রামপুরহাট শহরের বিভিন্ন প্রান্তে ঠান্ডা পানীয় জলের ব্যবস্থা করেছিল তারাপীঠ রামপুরহাট উন্নয়ন পর্ষদ। প্রায় সাড়ে তিন লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে নির্মিত ঐ সমস্ত ওয়াটার এটিএমগুলির অধিকাংশই এখন বন্ধ। পরিষেবা না পেয়ে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী থেকে শহরে আসা সকলেই। মহকুমা শহর হওয়ার জন্য আশপাশের বিভিন্ন ব্লক থেকে প্রতিদিন ও দৈনন্দিন নানা প্রয়োজনে বহু মানুষ রামপুরহাট শহরে আসেন। রামপুরহাট শহরের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী রাজ্য ঝাড়খণ্ডের শিকারিপাড়া-সহ দুমকা এলাকার মানুষের নিত্যদিনের যোগাযোগ। শহরের বাসিন্দারাও নানা প্রয়োজনে রাস্তায় বেরোন। এ ছাড়া রামপুরহাট স্টেশনে নেমে তারাপীঠের যাত্রীরাও যাতায়াত করেন।
শহরের মধ্য দিয়ে আসা যাওয়া মানুষজনকে তৃষ্ণা মেটানোর জন্য পানীয় জলের বোতল নিয়ে বেরোতে হয় বা দোকান থেকে কিনতে হয়। অনেকেই আর্থিক কারণে ১৫-২০ টাকা দামে জলের বোতল কিনতে পারে না। পানীয় সমস্যা মেটানোর জন্য তারাপীঠ রামপুরহাট উন্নয়ন পর্ষদ থেকে রামপুরহাট শহরের ব্যস্ততম এলাকাগুলিতে ওয়াটার এটিএম তৈরি করে। বছর দেড়েক সেগুলি রামপুরহাট পুরসভাকে হস্তান্তর করে তারাপীঠ রামপুরহাট উন্নয়ন পর্ষদ।
এলাকার বাসিন্দাদের অভিযোগ, রামপুরহাট শহরের ব্যস্ততম রাস্তা ছ’ফুঁকো থেকে সানঘাটাসেতু বাইপাস রাস্তায় ছ’ফুঁকো র কাছে ওয়াটার এটিএম অকেজো হয়ে পড়ে আছে। আবার রানিগঞ্জ মোড়গ্রাম জাতীয় সড়কে রামপুরহাট শহরের ব্যস্ততম মোড় ভাঁড়শালাপাড়া এলাকার ওয়াটার এটিএম দেড় বছর থেকে চালু করা হয়নি। তৈরি হওয়ার পর থেকেই কোনও ওয়াটার এটিএম থেকে পরিষেবা পাওয়া যায়নি। শহরের ব্যস্ততম রামপুরহাট মহকুমা প্রশাসনিক ভবন লাগোয়া পাঁচমাথা মোড়ের ওয়াটার এটিএম মাঝে মাঝে খারাপ হয়ে যায়।
সম্প্রতি রামপুরহাট পুরসভার ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দাদের একাংশ ছ’ফুঁকো সংলগ্ন ওয়াটার এটিএম চালু করার জন্য পুরসভার কাছে দাবি জানান। পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারপার্সন অশ্বিনী তিওয়ারি ছ’ফুঁকো সংলগ্ন ওয়াটার এটিএমটি চালু করার আশ্বাস দিলেও এখনও চালু হয়নি। 
তারাপীঠ রামপুরহাট উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান আশিস বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, ওয়াটার এটিএম তৈরি করে দেওয়ার পরে রামপুরহাট পুরসভাকে হস্তান্তর করা হয়। সেগুলি রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পুরসভার। মন্ত্রী জানান, ছ’ফুঁকোর ওয়াটার এটিএম অন্যত্র তুলে অন্যত্র বসানো হবে। ভাঁড়শালাপাড়ার ওয়াটার এটিএম কেন চালু করা হয়নি সে ব্যাপারে খোঁজ নেওয়ার আশ্বাস দিয়ে মন্ত্রীর দাবি, পাঁচমাথা মোড়ের ওয়াটার এটিএম থেকে শহরবাসী থেকে সাধারণ নাগরিক, সকলে ভালই পরিষেবা পান। 
শহরবাসীর অভিযোগ, রামপুরহাট মহকুমা শাসকের প্রশাসনিক ভবনের ভিতরের ওয়াটার এটিএমটি এক বছর ধরে খারাপ। এ ছাড়া প্রশাসনিক ভবন লাগোয়া পুরসভার 
জলাধারটিও দীর্ঘদিন থেকে অকেজো হয়ে আছে। এর ফলে এলাকার বাসিন্দা থেকে ফুটপাত ব্যবসায়ী এবং সাধার নাগরিকদের জন্য জলাধারটি কোনও কাজে লাগছে না। জলাধারটি মন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিধায়ক এলাকা উন্নয়ন খাতে তৈরী। মন্ত্রী বলেন, ‘‘জলাধারটি কেন অকেজো হয়ে আছে পুরসভার কাছে খোঁজ নেব। দ্রুত চালু করার জন্য পুরসভাকে বলা হবে।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন