কাটমানি বিক্ষোভ করাচ্ছেন দলেরও লোক— এ বার এমনই সন্দেহ প্রকাশ করলেন জেলা তৃণমূলের প্রথম সারির নেতা। শাসকদলের জেলা কমিটির সদস্য তথা জেলা পরিষদের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ আব্দুল কেরিম খান বললেন, ‘‘আমাদের কাছে খবর রয়েছে, দলেরই কেউ কেউ কাটমানি বিক্ষোভ করাচ্ছেন। দল তাঁদের ছেড়ে কথা বলবে না।’’ তৃণমূলের অন্দরমহলের খবর, শনিবার নানুরের বঙ্গছত্র গ্রামে দলীয় কার্যালয়ে কার্যত হুমকির সুরে এ কথা বলেন কেরিম খান। তাঁর এমন মন্তব্যে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের বিষয়ও সামনে এসেছে। কিছু দিন ধরেই জেলা জুড়ে শাসকদলের অনেক নেতা-কর্মীর বাড়ি ঘিরে আবাস যোজনার অনুদান, ১০০ দিনের কাজ, শৌচাগার নির্মাণ সহ বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পে কাটমানি ফেরতের দাবিতে বিক্ষোভ চলছে। কোথাও শাসকদলের নেতা কর্মীদের বাড়ি থেকে তুলে এনে মারধর, কোথাও বা মুচলেকা লিখিয়ে নেওয়ার অভিযোগও উঠেছে।  প্রতিটি ক্ষেত্রেই শাসকদলের তরফে বিক্ষোভের দায় বিজেপির ঘাড়ে চাপানো হয়েছে।

এ দিনের কর্মিসভায় পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ বলেন, ‘‘কারও বিরুদ্ধে দুনীতির অভিযোগ থাকলে পার্টি অফিসে জানাতে পারেন, বিডিও অফিসে জানাতে পারেন কিন্তু বিরোধীদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে ঝামেলা পাকালে তা বরদাস্ত করা হবে না।’’ একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘তৃণমূল প্রশাসনের তৈরি রাস্তা, পানীয় জল প্রকল্প, বিদ্যুৎ ভোগ করবে আর আমাদেরই বিরুদ্ধে মিছিল করবে, তা মেনে নেব না।’’ তাঁর মন্তব্য, ‘‘মিটিং-মিছিল করার অধিকার সবার রয়েছে, কিন্তু মিছিল করতে গিয়ে কারও দরজায় যদি ধাক্কা মারে, আমাদের মহিলা কর্মীদের লাঞ্ছিত করে, তা মেনে নেব না।’’

এ নিয়ে বিজেপির নানুর মণ্ডল কমিটির সভাপতি বিনয় ঘোষ বলেন, ‘‘আমরা যে কাটমানি ফেরতের জন্যে বিক্ষোভ করাচ্ছি না তা ওঁরা স্বীকার করে নিলেন। উন্নয়ন সরকার করছে। সরকার তৃণমূলের টাকায় চলে না, চলে জনগণের টাকায়।’’