তৃণমূলের এক সমর্থককে বাড়ি থেকে হঠিয়ে সেই জায়গায় দলীয় অফিস তৈরির চেষ্টার অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে। নানুরের মোহনপুর গ্রামে। তাঁর বাড়িতে আগুন লাগানোরও অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব অবশ্য তা মানেননি।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই গ্রামে কাঠা ছ’য়েক সরকারি পতিত জায়গা তিনপুরুষ ধরে ভোগদখল করছেন মনোজ মেটে। তাঁর দাবি, মাসতিনেক আগে সেখানে দু’কামরার একটি চালাঘর তৈরি করে বসবাস শুরু করেন।

অভিযোগ, বৃহস্পতিবার এলাকার কয়েক জন বিজেপি কর্মী-সমর্থক দলীয় পতাকা পুঁতে সেই জায়গা দখল করে। মনোজবাবুকে হঠিয়ে সেখানে বিজেপির দলীয় অফিস তৈরির চেষ্টা করেন। তা নিয়ে ঝামেলা হয়। বৃহস্পতিবার মনোজবাবু নানুর থানায় এলাকার ৮ জন বিজেপি কর্মী-সমর্থকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ, সেই আক্রোশে শুক্রবার রাতে তাঁর চালাঘর পুড়িয়ে দেওয়া হয়।

মনোজবাবুর বক্তব্য, ‘‘তিন পুরুষ ধরে আমাদের পরিবার ওই জায়গা ভোগদখল করছে। ভূমিহীন হলেও বার বার আবেদন জানিয়ে পাট্টা মেলেনি। ওই জায়গা থেকে আমাদের হঠিয়ে বিজেপির লোকেরা তা দখল করে দলীয় অফিস তৈরি করতে চাইছিল।’’ তাঁর অভিযোগ, পুলিশে অভিযোগ দায়ের করার জেরেই তাঁর বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়।

তৃণমূলের ব্লক সভাপতি সুব্রত ভট্টাচার্য বলেন, ‘‘মনোজ আমাদের দলের সমর্থক। তাঁর জায়গায় দলীয় অফিস তৈরি করার জন্য বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা ওঁর বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে।’’ অভিযোগ অস্বীকার করে বিজেপির নানুর মণ্ডল কমিটির সভাপতি বিনয় ঘোষ বলেন, ‘‘আমাদের দলের কেউ ওই ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয়। দলের বদনাম করতে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কারণে কেউ ওই জায়গায় আমাদের দলের পতাকা পুঁতে দিয়েছিল। একই কারণে বাড়িতে আগুন লাগানোর ঘটনাতেও বিজেপির নাম জড়ানো হচ্ছে।’’

পুলিশ জানায়, ওই ঘটনায় ৮ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি।