দুই ছবির মধ্যে ‘উরি’ই বেছে নিলেন আডবাণী 

‘দি অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’ নয়। প্রাক্তন উপপ্রধানমন্ত্রী বরং বেছে নিলেন ‘উরি’ ছবিটাকেই। একই সঙ্গে দিল্লির সিনেমাহলগুলোয় মুক্তি পেয়েছিল ‘দি অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’ ও ‘উরি’। প্রথম ছবিটি প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহের উপর সনিয়া গাঁধীর ছড়ি ঘোরানোর কাহিনি বলে চর্চা, তর্কবিতর্ক চলছে বিস্তর। দ্বিতীয় ছবিটিতে ‘সার্জিকাল স্ট্রাইক’-এর সময় সেনাবাহিনীর বীরত্বের জয়গানই উপজীব্য। ‘দি অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’-এ আবার লালকৃষ্ণ আডবাণীর চরিত্রও রয়েছে। সিনেমার ভক্ত আডবাণী অবশ্য ‘উরি’ ছবিটাই দেখতে গেলেন। মেয়ে প্রতিভা আডবাণীকে নিয়ে তিনি সম্প্রতি হাজির হয়েছিলেন দিল্লির এক সিনেমাহলে। কেমন লাগল, তা অবশ্য জানা যায়নি। 

আমন্ত্রণ

সাধারণত সেনা দিবসের অনুষ্ঠানের সন্ধ্যায় অতিথিদের জন্য আদর-আপ্যায়নের বন্দোবস্ত করেন সেনাপ্রধান। প্রতিরক্ষামন্ত্রী থেকে সেনার উচ্চপদস্থ অফিসার, প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের আমলা, প্রাক্তন সেনা অফিসারদের আমন্ত্রণ থাকে সেখানে। এ বার সেই অনুষ্ঠানেই আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল ‘উরি’ ছবির কলাকুশলীদেরও। সেনার মেজরের ভূমিকায় অভিনেতা ভিকি কৌশল, অভিনেত্রী ইয়ামি গৌতম, প্রযোজক রনি স্ক্রুওয়ালা সকলের সঙ্গে ছবি তুললেন। বাদ গেলেন না জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালও। সার্জিকাল স্ট্রাইক নিয়ে তৈরি ছবিতে ডোভালের আদলে তৈরি চরিত্রে অভিনয় করে বাহবা কুড়িয়েছেন পরেশ রাওয়াল।

 

নতুন নিয়োগ

এক সময় তিনি নিজেই দিল্লি স্কুল অব ইকনমিক্স-এ অর্থনীতির শিক্ষক ছিলেন। আমেরিকার কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গবেষণা করে আসা টি সি এ অনন্ত এর পর দীর্ঘ দিন কেন্দ্রীয় সরকারের মুখ্য পরিসংখ্যানবিদ হিসেবে কাজ করেছেন। তাঁর আমলেই মোদী সরকার ক্ষমতায় এসেই জিডিপি মাপার হিসেব বদলে দেয়। তা নিয়ে বিতর্কও কম হয়নি। অভিযোগ উঠেছিল, অর্থনীতির বহর ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে দেখাতেই এই হিসেব বদল। অনন্ত অবশ্য তখন সরকারের পক্ষেই সওয়াল করেছিলেন। অবসর গ্রহণের পরে তাঁকে এ বার ইউপিএসসি-র সদস্য হিসেবে নিয়োগ করা হল। যা দেখে দিল্লিতে অনেকের মুখেই ফুটল অর্থপূর্ণ মুচকি হাসি: মন্তব্য নিষ্প্রয়োজন!

 

কুম্ভ-ফেরত

তিনি অর্থনীতিবিদ। তা বলে কি কুম্ভে যাওয়া বারণ? কুম্ভ থেকে ঘুরে এলেন অর্থ মন্ত্রকের মুখ্য অর্থনৈতিক উপদেষ্টা সঞ্জীব স্যান্যাল। স্নান করেছেন, সাধুদের আখড়ায় পাত পেড়ে খেয়েছেন। দিল্লিতে এসেই অবশ্য ফের তাঁকে ছুটতে হল জয়পুরে, এক সাহিত্য উৎসবে যোগ দিতে। তিনি যে আবার লেখকও বটে! 

 

অগত্যা

নিজের নির্বাচনী ক্ষেত্র হাজিপুরের জন্য রোজ বিকেল পাঁচটা থেকে ছ’টা বরাদ্দ কেন্দ্রীয় খাদ্যমন্ত্রী রামবিলাস পাসোয়ানের। এইমস-এ ভর্তি, বদলি, নিয়োগ, নানান আবেদন। সম্প্রতি এক অনুরোধে নড়েচড়ে বসতে হল পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদকেও। এক জন রেশন কার্ড বানিয়ে দেওয়ার আবদার নিয়ে হাজির! বোঝানোর চেষ্টা করলেন, এটা রাজ্য তালিকাভুক্ত, তাঁর কিছু করার নেই। কিন্তু সে বান্দাও নাছোড়। অগত্যা ডাকলেন মন্ত্রকের এক কর্তাকে, যিনি রাজ্য সরকারে কাজ করেছেন এক সময়। ওই কর্তার হাতে কাজ তুলে দিয়ে তবে নিষ্কৃতি মিলল মন্ত্রীর।

জয়ী: দক্ষিণ মেরুতে অপর্ণা কুমার

 

শীর্ষে

দক্ষিণ মেরু জয় করে ফিরলেন অপর্ণা কুমার। ইন্দো-টিবেটান বর্ডার পুলিশের ডিআইজি ১১১ মাইল বরফের মধ্যে ট্রেক করে ১৩ জানুয়ারি দক্ষিণ মেরু পৌঁছন। অপর্ণাই দেশের প্রথম আইপিএস এবং প্রথম মহিলা অফিসার, যিনি দক্ষিণ মেরু পৌঁছলেন। সাত মহাদেশের ছ’টি উচ্চতম শৃঙ্গ জয় করে ফেলেছেন ইতিমধ্যে।

 

ব্রিগেড বিমান

১৯৮৪ থেকে দিল্লি আসছেন, কিন্তু নিজের বিমান দূরস্থান, কখনও বিজ়নেস ক্লাসেও তাঁকে উঠতে দেখেনি কেউ। তা বলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অতিথিরাও একই পথে হাঁটবেন, কে বললে! পাঁচ-পাঁচটি প্রাইভেট বিমান পৌঁছল কলকাতায়, উপলক্ষ ব্রিগেড। দিল্লি থেকে এলেন তেজস্বী যাদব। অখিলেশ যাদব, স্ট্যালিন, কুমারস্বামী, চন্দ্রবাবু নায়ডুর নিজস্ব বিমানও ভিড়ল কলকাতায়।