সারদা তদন্ত চলাকালীন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের দায়িত্ব নেওয়া উচিত। বুধবার এমনটাই বললেন সারদা কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত সাসপেন্ডেড তৃণমূল সাংসদ কুণাল ঘোষ। এ দিন দুপুরে তাঁকে নগর দায়রা আদালতে নিয়ে আসা হয়। আদালত থেকে বেরোনোর সময় কুণাল ওই কথা বলেন।

দুপুর একটা নাগাদ তাঁকে নগর দায়রা আদালতে নিয়ে আসা হয়। সেখানে থেকে বেলা তিনটে নাগাদ পুলিশের গাড়িতে জেলে ফেরত নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে। আদালত চত্বরে গাড়িতে ওঠার সময় কুণাল এ দিন বলেন, “সারদা কেলেঙ্কারিতে যাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে, তাঁদের উচিত ইস্তফা দিয়ে তদন্তের মুখোমুখি হওয়া।” এর পরই তাঁর সংযোজন, “তত দিন যোগ্যতম মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে সুব্রত মুখোপাধ্যায় কাজ চালান।”

এ দিন সকালে জেল থেকে আদালতে আসতে অস্বীকার করেন কুণাল ঘোষ। রাজ্যের পরিবহণমন্ত্রী মদন মিত্রকে কলকাতা পুলিশ বেশি সুযোগ-সুবিধা দেয় এই অভিযোগ এনে তিনি আদালতে আসবেন না বলে জানিয়ে দেন। শেষে কলকাতা পুলিশের দুই পদস্থ অফিসার জেলে গিয়ে তাঁর সঙ্গে কথা বলে তাঁকে আদালতে আসার বিষয়ে রাজি করান। এ দিন আদালতেও একই অভিযোগ করেন কুণাল। আদালতে তিনি প্রশ্ন করেন, কেন মদন মিত্রকে পুলিশ জেল থেকে আদালত বা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় ছোট গাড়িতে নিয়ে যায়?

এর আগেও শাসক দলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন তিনি। সারদা মিডিয়ার প্রত্যক্ষ সুবিধা সবচেয়ে বেশি পেয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, এমন দাবিও করেছিলেন তিনি। আদালত চত্বরে বারংবার বিতর্কিত মন্তব্য করায় পুলিশ তাঁকে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথাও বলতে দিত না। এমনকী, ধাক্কাধাক্কি করে গাড়িতে তোলার পাশাপাশি হা রে রে রে আওয়াজ করা হত। পুলিশের গাড়িতে চাপড়ানো হত, যাতে কুণালের কথা শোনা না যায়। এ দিন যদিও পুলিশকে এ সমস্ত করতে দেখা যায়নি। বরং বেশ শান্তিপূর্ণ ভাবে কুণাল তাঁর কথা সংবাদমাধ্যমের সামনে বলতে পেরেছেন।