নারদ নিউজের স্টিং অপারেশনে ব্যবহৃত পেন ড্রাইভ, আইফোন এবং ল্যাপটপ ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য হায়দরাবাদে পাঠানোর নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট। প্রধান বিচারপতি মঞ্জুলা চেল্লুর এবং বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ শুক্রবার এই নির্দেশ দিয়েছে।

নারদ স্টিং ভিডিওর ফরেনসিক পরীক্ষা রুখতে জোর চেষ্টা চালিয়েছিল রাজ্য সরকার। নির্বাচনের মধ্যে নারদ কাণ্ড নিয়ে কোনও পদক্ষেপ যেন না নেয় কলকাতা হাইকোর্ট, আবেদন ছিল সরকার পক্ষের কৌঁসুলি কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের। সে আবেদনে সাড়া দিল না হাইকোর্ট। স্টিং ভিডিওর অসম্পাদিত ফুটেজ ম্যাথু স্যামুয়েলের কাছ থেকে আগেই জিম্মায় নিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট। তা রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের লকারে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। এ বার তা ফরেনসিক পরীক্ষায় পাঠানোর নির্দেশও দেওয়া হল।

আরও পড়ুন:

স্থলে-জলে ফোর্স থাকছে, ভোট করে দেখানোর মডেল সল্টলেক

ফুটেজের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য স্টিং অপারেশনে ব্যবহৃত সমস্ত ইলেকট্রনিক ডিভাইস ফরেন্সিক পরীক্ষায় পাঠানো হবে হায়দরাবাদের সেন্ট্রাল ফরেন্সিক সায়েন্স ল্যাবরেটরিতে। হাইকোর্টের নির্দেশ, স্টিং-এর ফুটেজ প্রথম যে ল্যাপটপে নেওয়া হয়েছিল, এক সপ্তাহের মধ্যে নারদ নিউজের সিইও ম্যাথু স্যামুয়েল নিজে গিয়ে সেই ল্যাপটপ সিএফএসএল-এর ডিরেক্টরের হাতে তুলে দেবেন। কলকাতা হাইকোর্টের হেফাজতে থাকা আইফোন আর পেনড্রাইভ দিতে যাবেন আদালতের গড়ে দেওয়া কমিটির তিন সদস্য। চার সপ্তাহের মধ্যে পরীক্ষার রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে সিএফএসএল-কে। ফরেন্সিক পরীক্ষার রিপোর্ট দেখেই পরবর্তী পদক্ষেপ নির্ণয় করা হবে।

ফুটেজ প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই বিভিন্ন মহলে ভিডিওটির সত্যতা নির্ণয়ের দাবি উঠছিল। হাইকোর্টের এ দিনের সিদ্ধান্তে সেই দাবিই মান্যতা পেল বলে মনে করছেন সকলে।