দক্ষিণ কলকাতায় ফের মিছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। বালিগঞ্জ ফাঁড়ি থেকে মিছিল শুরু করে শেষ করলেন নিজের কেন্দ্র ভবানীপুরের হাজরা মোড়ে। বিধানসভা নির্বাচনের প্রচার শুরু করার পর শুধু দক্ষিণ কলকাতাতেই এটি মমতার তৃতীয় মিছিল। এ দিন তিন বিধানসভা কেন্দ্র ছুঁয়ে গেল তৃণমূল নেত্রীর মিছিল। সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের কেন্দ্র থেকে শুরু হয়ে শেষ হল মমতার নিজের কেন্দ্রে।

বিধানসভা নির্বাচনের প্রচার শুরু হতেই কলকাতায় একের পর এক মিছিল করছেন মমতা। সপ্তাহ দু’য়েকের মধ্যে শুধু দক্ষিণ কলকাতাতেই তিনটি মিছিল করে ফেললেন তিনি। প্রথম মিছিলটি হয়েছিল বেহালা এলাকায়। তার পর খিদিরপুর থেকে মোমিনপুর। সোমবার দক্ষিণ কলকাতা দেখল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃতীয় মিছিল। বিকেল ৪টের ৫ মিনিটে মিছিল শুরু হয়ে বালিগঞ্জ ফাঁড়ি থেকে হাজরা রোড, পদ্মপুকুর রোড হয়ে মিছিল পৌছয় হাজরা মোড়ে। বালিগঞ্জ, রাসবিহারী এবং ভবানীপুর— এই তিন বিধানসভা কেন্দ্রকে ছুঁয়ে যায় মমতার মিছিল। বালিগঞ্জ রাজ্যের পঞ্জায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের কেন্দ্র। রাসবিহারী হল বিধানসভায় শাসক দলের মুখ্য সচেতক শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের কেন্দ্র। ভবানীপুর মুখ্যমন্ত্রীর নিজেরই কেন্দ্র। স্বাভাবিক ভাবেই মিছিলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সুব্রত মুখোপাধ্যায় এবং শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় ছিলেন। এ ছাড়া ফিরহাদ হাকিম, শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং অরূপ বিশ্বাসও মিছিলে সামিল হন।

আরও পড়ুন:

ভিডিও অস্ত্রে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভোট-যুদ্ধে নেমেছে যুযুধান দু’পক্ষ

স্টিং কাণ্ডে যাঁদের টাকা নেওয়ার ছবি দেখা গিয়েছে, তাঁদের সঙ্গে নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মিছিল নিয়ে রাজনৈতিক শিবিরে গুঞ্জন তৈরি হয়েছে সোমবার। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী যে সে সব সমালোচনা গায়ে মাখছেন না, তা তিনি বুঝিয়ে দেন এ দিন। শোভন চট্টোপাধ্যায়কে নিজের গাড়িতে নিয়েই এ দিন নিয়ে মিছিলের সূচনাস্থলে পৌঁছন তৃণমূল নেত্রী।

মিছিলের পুরোভাগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই ছিলেন। তাঁর ঠিক পিছনেই ছিলেন তৃণমূলের অন্য শীর্ষ নেতারা। তাঁদের মধ্যেই দেখা গিয়েছে ববি হাকিম, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, শোভন চট্টোপাধ্যায়দের মতো স্টিং কাণ্ডে অভিযুক্ত নেতাদের। তৃণমূল নেতৃত্বের একাংশের ব্যাখ্যা, দক্ষিণ কলকাতার মিছিলে দক্ষিণ কলকাতার নেতারা তো থাকবেনই। এতে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই। মিছিল শেষে অরূপ বিশ্বাস বলেন, ‘‘বিধানসভা নির্বাচনের প্রথম পর্যায়ের প্রচার এখানেই শেষ হল। এর পর দোল-হোলির জন্য দিন দু’য়েকের বিরতি। তার পর দিদি আবার জেলা সফরে বেরিয়ে পড়বেন।’’