‘শুভ শারদীয়া’। পুজোর ঠিক আগে দর্শকদের জন্য এই উপহার নিয়ে আসছেন রাইমা সেন। রাজদীপ ঘোষের এই ছবি মুক্তি পাবে আগামী ১৩ অক্টোবর টেলিভিশনে। সেখানে রাইমার চরিত্রের নাম ‘শারদীয়া’। সেই গল্পেই শুরু সাক্ষত্কার। তবে আড্ডা গড়াল বহু দূর…।

‘শারদীয়া’ কেমন?
শারদীয়া মডার্ন মেয়ে। প্যাম্পারড বাই হার পেরেন্টস। বিয়ে হচ্ছে না, সে জন্য ওর বাবা-মা খুব ওয়রিড। অনেক পাত্র আসছে। না বলছে ও। শি’জ লাইক মি ইন আ লট অফ ওয়েজ।

তাই? কোথায় কোথায় আপনার সঙ্গে মিল?
ও প্যাম্পারড। আমাকেও বাবা-মা খুব প্যাম্পার করে। ওই দিক থেকে ও আমার মতো।

আর বিয়ে? 
হোয়াট ডু ইউ মিন? (মুচকি হাসি)

আপনিই বললেন, শারদীয়ার বিয়ে হচ্ছে না, বাবা মা ওয়ারিড…
আমার বিয়ে কবে, এটাই কি প্রশ্ন? (হাসিটা ধরে রেখেই…)

আরও পড়ুন, ‘মৌলিক ছবির জন্যই তো অভিনয় শিখেছি, কত কপিক্যাট করব বলুন?’

হুম…
(ভুরু নাচিয়ে) আমি জানতাম এটা আপনি আমাকে জিজ্ঞেস করবেন।…আমি জানি না। যখন হওয়ার হবে। বিয়ে প্ল্যান করে করা যায় না। আমার বোন ওর বরকে মিট করেছে। তার ছ’মাসের মধ্যে বিয়ে করেছে ওরা। ওটাই হবে হয়তো…।

মানে, রিয়ার মতোই হঠাত্ করে বিয়ে করবেন?
যখন বিয়ের সময় হবে, ঠিক মানুষকে খুঁজে পাব, তখন বিয়ে করব। আমি এটাই বিশ্বাস করি।

‘শারদীয়া’র থেকে কোথায় আলাদা আপনি?
এই মেয়েটি ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রামে ছবি দেয় না। ও পছন্দ করে না। শি ইজ নট অন সোশ্যাল মিডিয়া। এটা বড় ডিফারেন্স। আর আমি সব সময় সোশ্যাল মিডিয়াতে থাকি। অ্যাকচুয়ালি ছবিটা হাউ টু পিপল ইভেনচুয়ালি গেট টুগেদার। হোয়াই লভ ইজ ব্লাইন্ড। একটা টুইস্ট আছে গল্পে।

‘যখন বিয়ের সময় হবে, ঠিক মানুষকে খুঁজে পাব, তখন বিয়ে করব।’

পরিচালক তো আপনার চেনা…
রাজদীপের সঙ্গে অনেক কাজ করেছি। কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ের ফার্স্ট এডি ছিল ও। ফলে কৌশিকদার ছবি মানেই রাজদীপ ছিল। জয়ন্তী, সুলগ্না, ভানুদা ছিল। আমরা অনেক ক্যামেরার কাজ করেছি আগে। আমার চেনা ইউনিট।

এই যে ছবিটা টিভিতে রিলিজ করছে, সিনেমা হলে করছে না, এটাতে আপনার কোনও সমস্যা নেই?
দেখুন, সিনেমা ইজ সিনেমা। টিভির জন্য হোক বা বিগ স্ক্রিন। শুটিংটা তো একই। আমি আগেও করেছি শর্টফিল্ম। ওয়েব করেছি। সেখানেও প্ল্যাটফর্মটা আলাদা। তবে টিভির জন্য শুটিং বেশি করতে হয়। ১৪-১৫ ঘণ্টা করে কাজ। আট দিনে আমরা শুট শেষ করেছি। সেখানে বিগ স্ত্রিনের ছবি ২০-২২ দিনে শুট করি। একটু হেকটিক টিভিটা। কিন্তু আমি ইউজ টু হয়ে গিয়েছি। ‘হ্যালো’ করেছি ওয়েব সিরিজ। ওটাও ও রকম হেকটিক ছিল।

আরও পড়ুন, বিয়ে কবে? ঐন্দ্রিলা বললেন...

আপনার আরও একটি ছবি ‘রিইউনিয়ন’ তো সাউথ এশিয়ান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উত্সবে মনোনীত হয়েছে?
হ্যাঁ। আগামী ৪ অক্টোবর আমি আর পরম তো যাচ্ছি ওখানে। খুব ডিফারেন্ট ছবি ওটা। ডিরেক্টর মুরারী এম রক্ষিত ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির মানুষ নন। এটা ওঁর প্রথম ছবি। কিন্তু প্যাশনেটলি লিখেছেন নিজে। আমি অ্যাকসেপ্ট করেছিলাম কারণ গল্পটা খুব সুন্দর। কলেজের বন্ধুদের নিয়ে। পাস্ট অ্যান্ড প্রেজেন্ট দেখানো হবে। ২০ বছর পর দেখা হয় বন্ধুদের। কী ভাবে সব বদলে গিয়েছে, জীবন বদলে গিয়েছে। বেসিক্যালি বন্ধুত্বের গল্প। পলিটিক্স, লয়ালটি, লভ, অনেক ডিফারেন্ট টপিককে টাচ করেছে। তবে সত্যি বলতে কি, আমার একটা ভয় ছিল। নতুন তো…। স্ক্রিপ্টটা ভাল হতেই পারে। কিন্তু এগজিকিউশনটাও খুব গুরুত্বপূর্ণ। পরে ডাবিং করলাম যখন খুব ভাল লেগেছে। সেই ভয়টা আর নেই। আমি এখনও ফিল্মটা দেখিনি। কিন্তু যতটা ডাবিং করেছি মনে হয়েছে ভাল হবে ছবিটা।

ভাল গল্প এলে নিশ্চয়ই আরও ওয়েব সিরিজ করব।

আর কী কী কাজ করছেন এখন?
চূর্ণীদির ‘তারিখ’ করেছি। অঞ্জনদার ‘ফাইনালি ভালবাসা’ শেষ করলাম। বম্বেতে ডাবিং শুরু করব ‘হাসলে পাগলি’র। উদয়পুরে শুট করলাম ওটা। ওখানে স্ট্যান্ড আপ কমেডিয়ানের চরিত্র। যার ক্যানসার ধরা পড়বে।

আরও পড়ুন, ‘মান্টো’ একটা আইডিয়া, আমি সেটাই দেখাতে চেয়েছি, বললেন নন্দিতা

কমেডিয়ান? এমন তো আগে করেননি?
(চোখ বড় করে) ফার্স্ট টাইম আমার জন্য। জীবনে করিনি এমন চরিত্র। ভয় পেয়েছিলাম। ডিফিকাল্ট ছিল। কমেডি সে রকম করি না আমি। কিন্তু ওই ডিরেক্টরের সঙ্গে আগে একটা ছবি করেছি, ‘বারাণসী’। ওটা এখনও রিলিজ হয়নি। তার পর অতুল কুলকার্নির সঙ্গে একটা ছবি করলাম। ওটার সেকেন্ড শিডিউল বাকি আছে। ছবিটার নাম ‘অন্য’। দ্য আদার ওয়ান। সেক্স ট্র্যাফিকিং প্রজেক্ট। যেটা আমি ব্রেক করব। ওখানে আমি সাংবাদিক। আমি, অতুল আমরা একটা টিম…।

আর ওয়েব সিরিজ?
‘হ্যালো’ সিজন টু শুরু করছি। ভাল গল্প এলে নিশ্চয়ই আরও কাজ করব।

ছবি: রাইমার ফেসবুক পেজের সৌজন্যে।

(সেলেব্রিটি ইন্টারভিউ, সেলেব্রিটিদের লাভস্টোরি, তারকাদের বিয়ে, তারকাদের জন্মদিন থেকে স্টার কিডসদের খবর - সমস্ত সেলেব্রিটি গসিপ পড়তে চোখ রাখুন আমাদের বিনোদন বিভাগে।)