গত ২২ সেপ্টেম্বর মুক্তি পেয়েছে অমিত মাসুরকার পরিচালিত ‘নিউটন’। প্রথম দিনই দর্শকদের পছন্দ হয়েছে অন্য ধারার এই ছবি। পছন্দ হয়েছে রাজকুমার রাওয়ের অভিনয়। শুধু তাই নয়, চলতি বছর অস্কারের মঞ্চে ভারতের মুখ হিসেবেও বেছে নেওয়া হয়েছে ‘নিউটন’কে। কিন্তু রিলিজের পরই একটি ইরানি ছবি থেকে টোকার অভিযোগ উঠল ‘নিউটন’-এর বিরুদ্ধে। সত্যিই কি তাই? আদৌ এ অভিযোগ কতটা ঠিক?

আরও পড়ুন, মুভি রিভিউ: নিউটন, এই ছবি শেষ হয়, ফুরিয়ে যায় না

এনডিটিভি-র খবর অনুযায়ী, ‘নিউটন’-এর সঙ্গে ইরানি ছবি ‘সিক্রেট ব্যালট’-এর প্রচুর মিল রয়েছে। দু’টি ছবিতেই মূল চরিত্রে রয়েছেন এক পোলিং অফিসার। যাঁকে ভোটের সময় প্রত্যন্ত এলাকায় নির্বাচনের কাজে পাঠানো হয়। ওই এলাকা থেকে বেরিয়ে আসার সব রকম চেষ্টা করেন তিনি। কিন্তু নিরাপত্তারক্ষীরা কোনও ভাবেই তাঁকে বেরতে দেননি। এমন বেশ কিছু মিল রয়েছে। ফলে ইন্ডাস্ট্রির অনেকেই মনে করছেন, ওই ইরানি ছবিটি অনুকরণ করেই ‘নিউটন’ তৈরি হয়েছে।

আরও পড়ুন, অস্কার-দৌড়ে ভারতের ঘোড়া রাজকুমারের ‘নিউটন’

এ ছবির পরিচালক তথা লেখক অমিত মাসুরকারের দাবি, ‘‘আমার মনে আছে, তখন আমার লেখা হয়ে গিয়েছিল। শুট শুরু করার ঠিক আগে আমার এক বন্ধু সিক্রেট ব্যালটের কথা আমাকে বলেছিল। তারপর আমি ইউটিউবে সিনেমাটা দেখেছিলাম। ওখানে এক মহিলা পোলিং অফিসারকে দরজায় দরজায় ঘুরতে দেখা গিয়েছিল। কিছু রোম্যান্টিক ট্র্যাকও ছিল। এ সব কিন্তু নিউটনে নেই। কিছু মানুষ মিল খুঁজে পাচ্ছেন। কিন্তু তাতে আমার কিছু করার নেই। আমি যখন কোনও গল্প লিখছি, হতেই পারে তেমনটা আরও কেউ লিখেছেন।’’

যদিও অমিতের যুক্তি মানতে নারাজ ইন্ডাস্ট্রির অনেকেই। ‘নিউটন’ বিতর্কের জল কতদূর গড়ায়, এখন সেটাই দেখার।