• সুচন্দ্রা দে, কাটোয়া
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

এক বাড়িতে তিন দুর্গার আরাধনা দেবগ্রামে

pujo
দেবী-বন্দনা: চক্রবর্তী বাড়িতে একচালায় প্রতিমা। নিজস্ব চিত্র

বাড়িতে তিনটি দুর্গার আরাধনা। এমনই রেওয়াজ মঙ্গলকোটের দেবগ্রামের চক্রবর্তী বাড়িতে। বাড়ির সদস্যদের দাবি, প্রায় তিন শতাব্দী ধরে এই রীতি চলছে। শুধু তাই নয়, এখানে দেবীকে ভোগ হিসেবে ফলমূল নয়, নিবেদন করা হয় পাঁঠার মেটে ও ফুসফুস।

এলাকায় গিয়ে দেখা গেল, বসতবাড়ির পাশেই কাঠাখানেক জায়গার উপরে রয়েছে দুর্গামন্দির। তিনটি দুর্গাপুজোর ইতিহাস কী? পরিবারের সূত্রে জানা গিয়েছে, তারিণীপ্রসাদ চক্রবর্তী নামে এক পূর্বপুরুষকে রাজ পরিবার সাত ইঞ্চির অষ্টধাতুর তৈরি সিংহবাহিনীর মূর্তি উপহার হিসেবে দেন। পরে এই পরিবারেরই কেউ, গ্রামে খুঁজে পান এক ফুট উচ্চতার কষ্ঠিপাথরের একটি মূর্তি, যিনি ‘খ্যাঁদামা’ রূপে পূজিতা হন। এই দেবীর রয়েছে চার হাত। এরও কিছু দিন পরে ছোট মূর্তিতে পুজোয় মন না ভরায় পরিবারের সদস্য কৃষ্ণচন্দ্র চক্রবর্তী ও বলরাম চক্রবর্তী একচালার দুর্গাপ্রতিমায় পুজোর প্রচলন করেন। সঙ্গে তৈরি হয় মাটির খড়ের চালায় দুর্গামন্দির। বছর দুয়েক আগে পরিবার ও গ্রামবাসীদের সহযোগিতায় মন্দিরটি পাকা হয়েছে।

আরও পড়ুন: ভিড়ে এগিয়ে কে, তাল ঠুকছে উত্তর কলকাতা

পরিবারের সদস্যরা জানান, ‘শিবঘরে’ সিংহবাহিনী ও ‘খ্যাঁদামা’র মূর্তি রোজ পুজো করা হয়। শারদ উৎসবের সময়ে এই দুই গৃহদেবতার পুজোর পরে একচালার প্রতিমায় পুজো শুরু হয়। পুজোর রীতিতেও বেশ কিছু বিশেষত্ব রয়েছে। পরিবারের সদস্য উত্তম চক্রবর্তী জানান, সপ্তমী, অষ্টমী ও নবমী, এই তিন দিন দেবীকে ৫২ পদের ভোগ অর্পণ করা হয়। সঙ্গে পাঁঠার মেটে ও ফুসফুসও দেওয়া হয়। কাঠের আগুনে মাটির হাঁড়িতে পেঁয়াজ, রসুন ছাড়া লঙ্কা, জিরে, আদা দিয়েই এই রান্না করেন বাড়ির মেয়ে-বউরা। দেবীমূর্তি বিসর্জনের সঙ্গে সঙ্গে ওই মাটির পাত্রগুলিও বিসর্জন দেওয়া হয়। আর দশমীতে নিবেদন করা হয় চিঁড়ে ভোগ।

আরও পড়ুন: ‘বাহুবলী’ কে, তাল ঠুকছে দুই পুজো

এই বাড়ির নবীন সদস্য তিতলি চক্রবর্তী, বুদ্ধদেব চক্রবর্তীরা বলেন, ‘‘পুজোয় বাড়ি ছাড়া অন্য কোথাও মন টেকে না। বাড়ি ছাড়া, পাড়ার সকলেও আনন্দ উৎসবে যোগ দেন। থাকে সাংস্কৃতিক নানা অনুষ্ঠানও।’’ পারিবারিক এই পুজো ঘিরে গ্রামবাসীও মেতে ওঠেন বলে জানান স্থানীয় বাসিন্দা বুদ্ধদেব পাল, জীবনকৃষ্ণ ঘোষরা।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন