Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৫ অগস্ট ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

টিকিট নিয়ে বিতর্কের চেনা ছবি আপে

লঙ্কায় গেলেই রাবণ হওয়ার আপ্তবাক্যটি রাজনীতিকদের সম্পর্কে প্রায়ই শোনা যায়। টিকিট বণ্টন নিয়ে অন্য দলগুলির মতো কোন্দলে জড়িয়ে সেই ধারাই বজায় রাখ

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি ১৪ মার্চ ২০১৪ ০৪:২৯
Save
Something isn't right! Please refresh.
আপ-এ যোগ দেওয়ার পরে গুল পনাগ। ছবি: পিটিআই।

আপ-এ যোগ দেওয়ার পরে গুল পনাগ। ছবি: পিটিআই।

Popup Close

লঙ্কায় গেলেই রাবণ হওয়ার আপ্তবাক্যটি রাজনীতিকদের সম্পর্কে প্রায়ই শোনা যায়। টিকিট বণ্টন নিয়ে অন্য দলগুলির মতো কোন্দলে জড়িয়ে সেই ধারাই বজায় রাখলেন আম আদমি পার্টির (আপ) নেতা-কর্মীরা।

দলের সাধারণ কর্মীরা তো বটেই, টিকিট বণ্টন নিয়ে ইতিমধ্যেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দলে অরবিন্দ কেজরীবাল ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত সাজিয়া ইলমি বা কুমার বিশ্বাসেরাও। টিকিট না পাওয়ায় ইস্তফা দিয়েছেন দলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য অশোক অগ্রবাল। আজও দলের চণ্ডীগড় ও দিল্লির আসনে ঘোষিত প্রার্থীর বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রকাশ করে দু’জায়গাতেই বিক্ষোভ দেখান আপ সমর্থকেরা।

আবার আজই ভাঙচুর ও আইন অমান্য করার অপরাধে কেজরীবালের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে মুম্বই পুলিশ। যদিও মানুষের অসুবিধার অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে কেজরীবাল দাবি করেন, “দলের কোনও সমর্থক ভাঙচুরের সঙ্গে জড়িত ছিল না। এ সব সংবাদমাধ্যমের উদ্দেশ্যমূলক প্রচার।”

Advertisement

ক্ষমতায় এলে ভিন্ন ঘরানার রাজনীতি উপহার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন আপ নেতৃত্ব। কিন্তু সরকার বিরোধী ধর্না-বিক্ষোভ থেকে টিকিট বণ্টন-সবেতেই আর পাঁচটা দলের চেনা ছবি আপ শিবিরেও। আজ আপে যোগ দেন অভিনেত্রী গুল পনাগ। চণ্ডীগড় থেকে তাঁকে টিকিট দিয়েছে দল। প্রথমে ওই কেন্দ্রে কৌতুক শিল্পী সবিতা ভাট্টিকে টিকিট দিলেও পরে পনাগকে বেছে নিয়েছেন আপ নেতৃত্ব। তা নিয়ে দলের দফতরের সামনে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন এক দল আপ সমর্থক। অন্য দিকে দিল্লির উত্তর-পূর্ব কেন্দ্র থেকে আনন্দ কুমারকে প্রার্থী করেছে দল। আজ সেই প্রার্থীর বিরুদ্ধে দিল্লির হনুমান রোডে দলের সদর দফতরের সামনে বিক্ষোভ দেখান ওই আপ সমর্থকেরা। কেজরীবালকে লেখা খোলা চিঠিতে ওই বিক্ষোভকারীরা আবেদন করেছেন, আনন্দ কুমার বহিরাগত। তাঁকে দলের কেউ চেনে না। তাই আনন্দের বদলে অন্য কাউকে দাঁড় করান হোক।

দিল্লি বিধানসভায় মাত্র ৩২০ ভোটে হেরে যাওয়া সাজিয়া ইলমি দক্ষিণ দিল্লি কেন্দ্র থেকে লোকসভা ভোটে লড়তে চেয়েছিলেন। সেখানে দেবেন্দ্র শেরাওয়াতকে প্রার্থী করে দল। সাজিয়াকে সনিয়া গাঁধীর বিরুদ্ধে রায়বরেলীতে দল দাঁড় করাতে চাইলেও তিনি তা মানতে চাননি। সাজিয়া বলেছেন, “সামনে আমার ছেলের পরীক্ষা। আমি তাই দিল্লি সংলগ্ন এলাকা থেকে দাঁড়াতে চাই।” দলের শীর্ষ নেতৃত্ব সাজিয়াকে গাজিয়াবাদ থেকে টিকিট দিয়ে পরিস্থিতি সামলাতে চাইছেন।

রাহুল গাঁধীর কেন্দ্রে প্রার্থী হওয়া কুমার বিশ্বাসও দলের উপরে ক্ষুব্ধ। সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশ সফরে গেলে কেজরীবালকে তাঁর কেন্দ্রে প্রচারে যেতে অনুরোধ করেন বিশ্বাস। আপ সূত্রের খবর, বিশ্বাসের উপর প্রসন্ন নন কেজরীবাল। কারণ, দলের অনুমোদন ছাড়াই অমেঠি কেন্দ্র থেকে দাঁড়াবেন বলে ঘোষণা করে দিয়েছিলেন বিশ্বাস। তাই কেজরীবাল উত্তরপ্রদেশ গিয়েও অমেঠি সফর এড়িয়ে যান। শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে দূরত্ব সৃষ্টি হয় তাঁর।

শুধু ওই দুই নেতাই নয়, দলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য আইনজীবী অশোক অগ্রবাল চাঁদনি চক কেন্দ্র থেকে টিকিট না পেয়ে দু’দিন আগেই দল থেকে ইস্তফা দিয়েছেন। ঘনিষ্ঠ মহলে তিনি জানিয়েছেন, যাঁরা শুরু থেকে দলের সঙ্গে ছিলেন তাঁদের অগ্রাহ্য করা হচ্ছে। যাঁরা পরে এসেছেন তাঁদের প্রার্থী করছে দল।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement