Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৬ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

আটকে গেল মিশা-য় আটকদের পেনশন

জরুরি অবস্থার সময়ে অভ্যন্তরীণ সুরক্ষা আইন বা মিশা-য় আটকদের পেনশন স্থগিত করে বিতর্কে মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ।

সংবাদ সংস্থা
ভোপাল ০৪ জানুয়ারি ২০১৯ ০২:১৬
পেনশন আটকে বিতর্কে কমল নাথ। ফাইল চিত্র।

পেনশন আটকে বিতর্কে কমল নাথ। ফাইল চিত্র।

জরুরি অবস্থার সময়ে অভ্যন্তরীণ সুরক্ষা আইন বা মিশা-য় আটকদের পেনশন স্থগিত করে বিতর্কে মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ।

রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিংহ চৌহান জরুরি অবস্থার সময়ে মিশা-য় আটকদের জন্য পেনশন চালু করেছিলেন। এই প্রকল্পের নাম দেওয়া হয়েছিল লোকনায়ক জয়প্রকাশ সম্মান নিধি। ২০০৮ সালে চালু রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্ত গত বছরেই আইনে পরিণত হয়েছিল। এর ফলে পেনশন প্রাপকেরা মাসে ২৫ হাজার টাকা পেতেন। সূত্রের খবর, এ জন্য সরকারি কোষাগার থেকে খরচ হত বছরে ৭০ থেকে ৭৫ কোটি টাকা।

তবে রাজ্যে পালাবদলের পরেই নতুন করে সরকারি নির্দেশ জারি হয়েছে। বলা হয়েছে, পেনশন প্রাপকদের সশরীর উপস্থিতি খতিয়ে না দেখা পর্যন্ত পেনশন স্থগিত করা হচ্ছে। যা নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক ভি ডি শর্মা বলেন, ‘‘জরুরি অবস্থার বিরোধিতা করে লড়তে গিয়ে যাঁদের চরম কষ্টের মুখোমুখি হতে হয়েছিল, তাঁদের প্রতি অন্যায় করা হল।’’ শর্মার দাবি, পেনশন প্রাপকেরা সমাজের সব স্তরের মানুষ। কংগ্রেস নেতৃত্বের অবশ্য দাবি, এঁদের প্রায় সকলেই সঙ্ঘ পরিবারের সঙ্গে যুক্ত। অডিটরের আপত্তির পরেই এই ধরনের পদক্ষেপ করা হয়েছে বলে যুক্তি দিচ্ছেন তাঁরা। কংগ্রেসের মুখপাত্র নরেন্দ্র সালুজার দাবি, সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী পেনশন বন্ধ করার সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে টাকা দেওয়ার আগে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করার কথা বলা হয়েছে।

Advertisement

১৯৭৫ সালে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গাঁধীর নির্দেশে জরুরি অবস্থা জারি হলে দেশজুড়ে বিক্ষোভের ঝড় ওঠে। ১৯৭৭ সালের মধ্যে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বহু মানুষকে মিশা-য় আটক করা হয়।

আরও পড়ুন

Advertisement