Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৪ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

জোর ধাক্কা খেলেন রাহুল, সহারা ডায়েরি সম্পূর্ণ মিথ্যা, মন্তব্য শীলার

তাঁর ছোড়া বাণ তাঁর দিকেই ফিরল ব্যুমেরাং হয়ে। সহারার কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগে এক বিন্দু সত্যতা নেই, বললেন বর্ষীয়াণ কংগ্রেস নেত্রী শীলা দ

সংবাদ সংস্থা
২৬ ডিসেম্বর ২০১৬ ১৭:২৫
Save
Something isn't right! Please refresh.
দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, রাহুলের মন্তব্যে তিনি ‘বিস্মিত’। —ফাইল চিত্র।

দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, রাহুলের মন্তব্যে তিনি ‘বিস্মিত’। —ফাইল চিত্র।

Popup Close

তাঁর ছোড়া বাণ তাঁর দিকেই ফিরল ব্যুমেরাং হয়ে। সহারার কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগে এক বিন্দু সত্যতা নেই, বললেন বর্ষীয়াণ কংগ্রেস নেত্রী শীলা দীক্ষিত। গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন নরেন্দ্র মোদীকে ঘুষ দেওয়া হয়েছিল বলে যেমন লেখা রয়েছে সহারা ডায়েরিতে, ঠিক তেমন ভাবেই সেখানে লেখা রয়েছে দিল্লির তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিতকে টাকা দেওয়ার কথাও। মোদীর বিরুদ্ধে যে ডায়েরিকে অস্ত্র হিসেবে তুলে ধরতে চাইছেন রাহুল, সে অস্ত্রে কংগ্রেস নিজেই ঘায়েল হওয়ায় স্বাভাবিক ভাবেই ঘোর অস্বস্তিতে রাহুল।

গুজরাতের এক জনসভা থেকে সম্প্রতি নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছেন কংগ্রেস সহ সভাপতি রাহুল গাঁধী। এর পর কংগ্রেসের তরফ থেকে টুইট করে জানানো হয়, সহারা ডায়েরি হল এই অভিযোগের স্বপক্ষে অন্যতম প্রমাণ। রাহুলের এই অভিযোগ সম্পর্কে বিজেপি যে সুরে কথা বলেছে, ঠিক সেই সুরই সোমবার শোনা গেল কংগ্রেসের প্রবীণ নেত্রী তথা উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেসের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী শীলা দীক্ষিতের গলাতেও। মিডিয়ার প্রশ্নের মুখে পড়ে এ প্রসঙ্গে শীলা সোমবার বলেছেন, ‘‘এগুলো সবই আপনাদের শোনা কথা। এই সব অভিযোগের বিন্দুমাত্র সত্যতা নেই।’’ এটুকু বলেই থামেননি দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী। সহারা ডায়েরিতে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে টাকা দেওয়ার কথা লেখা রয়েছে বলে যে অভিযোগ, তাকে সুপ্রিম কোর্টও যে মান্যতা দেয়নি, শীলা দীক্ষিত এ দিন সে কথাও উল্লেখ করেছেন। রাহুল গাঁধীর মন্তব্যের পর বিজেপি মুখপাত্রদের মুখেও এই কথাই শোনা গিয়েছিল। তাঁরাও বলেছিলেন, সুপ্রিম কোর্ট এ সব অভিযোগকে নস্যাৎ করে দিয়েছে। সুতরাং এ কথা আর নতুন করে তুলে আনার কোনও অর্থই হয় না।

সহারা ডায়েরির কথা যখন প্রথম প্রকাশ্যে আসে, সে সময় নরেন্দ্র মোদী ছাড়াও মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিংহ চৌহান, ছত্তিসগঢ়ের মুখ্যমন্ত্রী রমন সিংহ এবং দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিতের নাম শোনা গিয়েছিল। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করার দাবি তুলে সুপ্রিম কোর্টে আবেদনও জমা পড়েছিল। কিন্তু সর্বোচ্চ আদালত জানিয়ে দেয়, অভিযোগের কোনও সত্যতা খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না, তদন্তের প্রয়োজন নেই। এ কথা যে রাহুল গাঁধী জানতেন না, তা নয়। তা সত্ত্বেও মোদীকে আক্রমণ করার জন্য তিনি বেছে বেছে ওই প্রসঙ্গই খুঁচিয়ে তুললেন কেন, স্বাভাবিক ভাবেই সে প্রশ্ন উঠেছে। শীলা দীক্ষিতের কাছেও এর জবাব নেই। তিনি বলেছেন, ‘‘এতে আমি খুব বিস্মিত হয়েছি।’’ বিষয়টি নিয়ে তিনি দলের শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে কথা বলবেন বলেও শীলা দীক্ষিত জানিয়েছেন।

Advertisement

আরও পড়ুন: অটলের বুকেই কি আশ্রয় চাইছেন মোদী

তবে গণমাধ্যমকেও এ দিন পাল্টা প্রশ্নের মুখে ফেলে দিয়েছেন শীলা। তাঁর প্রশ্ন, ‘‘ওই তালিকায় তো অনেক নাম রয়েছে। শুধু শীলা দীক্ষিতের নাম নিয়েই আপনারা চর্চা করছেন কেন? আমার তো এ রকম কিছু মনে পড়ছে না। অন্য মুখ্যমন্ত্রীদের নামও রয়েছে। তাঁদের বিষয়ে আপনারা কথা বলছেন না কেন? শুধু মাত্র শীলা দীক্ষিতই কেন?’’

রাহুল গাঁধীকে কোণঠাসা করার অস্ত্র লুফে নিয়েছে বিজেপি। সহারা ডায়েরিতে নরেন্দ্র মোদীর নাম থাকলে রাহুল গাঁধী অভিযোগ করবেন, আর শীলা দীক্ষিতের বিষয়ে তিনি চুপ থাকবেন, এমনটা হতে পারে না, বক্তব্য বিজেপির। দলের সর্বভারতীয় সচিব সিদ্ধার্থনাথ সিংহের কটাক্ষ, ‘‘কংগ্রেস সহ সভাপতি রাহুল গাঁধী এবং কংগ্রেস মুখপাত্ররা বার বার নির্বোধের মতো ভুল করছেন। ... রাহুল গাঁধী এখন আর সিশু নন, এত দিনে তাঁর বোধবুদ্ধি হওয়া উচিত ছিল।’’



Something isn't right! Please refresh.

আরও পড়ুন

Advertisement