Advertisement
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩
India-China

নজরে গালওয়ান, সীমান্ত পরিস্থিতি দেখতে আজ লে-তে সেনাপ্রধান

গত ১৫ জুন গালওয়ান উপত্যকার চিনা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে আহত জওয়ানদের সঙ্গেও কথা বলবেন জেনারেল এম এম নরবণে।

দু’দিনের লে-লাদাখ সফরে যাচ্ছেন সেনাপ্রধান মনোজ মুকুন্দ নরবণে। —ফাইল চিত্র

দু’দিনের লে-লাদাখ সফরে যাচ্ছেন সেনাপ্রধান মনোজ মুকুন্দ নরবণে। —ফাইল চিত্র

সংবাদ সংস্থা
নয়াদিল্লি শেষ আপডেট: ২৩ জুন ২০২০ ১২:১৮
Share: Save:

গালওয়ান উপত্যকায় ১৫ জুন রাতের সংঘর্ষের পর এখনও প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় মোতায়েন রয়েছে ভারত-চিন উভয় পক্ষের সেনা। সেই সেনা সরাতে চলছে লেফটেন্যান্ট পর্যায়ের বৈঠক। তার মধ্যেই গ্রাউন্ড জিরোর পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে আজ মঙ্গলবার লাদাখের লে সেনা ঘাঁটি পরিদর্শনে যাচ্ছেন সেনাপ্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নরবণে। দু’দিনের সফরে গালওয়ান উপত্যকার সংঘর্ষে আহত জওয়ানদের দেখতে যাওয়ার কথা রয়েছে তাঁর।

সোমবার বেলা সাড়ে এগারোটা নাগাদ গালওয়ান উপত্যকায় নিয়ন্ত্রণরেখায় চুসুল-মল্ডো পয়েন্টে নিয়ন্ত্রণরেখার ওপারে চিনের দিকে বৈঠকে বসেছিলেন ভারত চিন লেফটেন্যান্ট জেনারেল পর্যায়ের সেনা আধিকারিকরা। সেই বৈঠক চলেছে প্রায় ১১ ঘণ্টারও বেশি। ভারতীয় সেনা সূত্রে খবর, চিনা বাহিনী ‘পরিকল্পিত হামলা’ চালিয়েছিল বলে ভারতের তরফে বৈঠকে জোর দিয়ে বলা হয়েছে। যদিও সেনা সরানোর বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত হয়েছে, সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি। সেনা সূত্রে খবর, এখনও দু’দেশই নিয়ন্ত্রণরেখায় সেনা মোতায়েন করে রেখেছে।

এমন পরিস্থিতিতেই আজ দুপুরে লে-র ১৪ কোরের সেনা ঘাঁটিতে যাচ্ছেন সেনাপ্রধান। সেনা সূত্রে জানানো হয়েছে, সীমান্তের পরিস্থিতি সরেজমিন পরিদর্শনে যাচ্ছেন সেনাপ্রধান। দায়িত্বে থাকা সেনার পদস্থ কর্তাদের সঙ্গে একাধিক বৈঠক করার কথা রয়েছে তাঁর। লেফটেন্যান্ট জেনারেল পর্যায়ের বৈঠকে আলোচনার নির্যাস জানার পর পরবর্তী পদক্ষেপ কী হবে, সে সব বিষয়ে পরামর্শ দেবেন তিনি। সেনা সূত্রে খবর, একাধিক ফরওয়ার্ড পয়েন্টে গিয়ে সেখানে কর্তব্যরত সেনা জওয়ানদের সঙ্গেও কথা বলবেন তিনি। এর পর বিকেলের দিকে ফিরবেন লাদাখে। বুধবার লাদাখের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবেন তিনি।

আরও পড়ুন: আন্তর্জাতিক রিপোর্ট: নিয়ন্ত্রণরেখায় শক্তিতে ভারত-চিন কে কোথায় এগিয়ে

আরও পড়ুন: লাদাখে ক্ষেপণাস্ত্র, সেনা-মৃত্যু মানল চিন

গালওয়ান উপত্যকার সংঘর্ষে বিহার রেজিমেন্টের কমান্ডিং অফিসার-সহ মোট ২০ জনের মৃত্যু হয়েছিল। আহত হয়েছিলেন আরও অন্তত ৭৬ জন। তাঁরা লাদাখে চিকিৎসাধীন। তাঁদের মনোবল বাড়াতে হাসপাতালে গিয়ে কথা বলবেন সেনাপ্রধান।

লাদাখে যেমন চিনা আগ্রাসন রয়েছে, জম্মু কাশ্মীরে লাগাতার উস্কানি দিয়ে চলেছে পাকিস্তান। মাঝে মধ্যেই অস্ত্রবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করছে সীমান্তের ওপার থেকে চলছে গোলাবর্ষণ। পাল্টা জবাব দিচ্ছে ভারতীয় বাহিনীও। অন্য দিকে প্রায় গোটা উপত্যকা জুড়ে ব্যাপক জঙ্গি দমন অভিযান চলছে। লাদাখ থেকে ফেরার পথে শ্রীনগরে ১৫ কোর সেনা ঘাঁটিতে গিয়ে সেই সব বিষয়েও পর্যালোচনা করবেন জেনারেল নরবণে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE