Advertisement
০৯ ডিসেম্বর ২০২২

সেই অলওয়ারে ফের গো-তাণ্ডব

২০১৫-য় উত্তরপ্রদেশের দাদরি থেকে শুরু করে দেশ জুড়ে গোরক্ষার নামে সন্ত্রাস অব্যাহত।

প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

নিজস্ব প্রতিবেদন
শেষ আপডেট: ২২ জুলাই ২০১৮ ০৪:০৮
Share: Save:

শুক্রবার নরেন্দ্র মোদী বললেন, তিনি ‘বিকাশের ভাগীদার’। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ বললেন, গণধোলাই রোখার দায় রাজ্যগুলির। তাঁদের বক্তৃতার কয়েক ঘণ্টা পরেই বিজেপিশাসিত রাজস্থানে, পেহলু খান হত্যায় কুখ্যাত অলওয়ারেই আকবর খান নামে এক যুবককে পিটিয়ে মেরে ফেলা হল। সঙ্গী আসলাম কোনও রকমে পালিয়ে বেঁচেছেন। গরু পাচারকারী সন্দেহেই তাঁদের পেটানো হয় বলে অভিযোগ।

Advertisement

২০১৫-য় উত্তরপ্রদেশের দাদরি থেকে শুরু করে দেশ জুড়ে গোরক্ষার নামে সন্ত্রাস অব্যাহত। সুপ্রিম কোর্ট এ নিয়ে বারবার অসন্তোষ প্রকাশ করলেও কাজের কাজ যে হয়নি, অলওয়ারে দ্বিতীয় হত্যাকাণ্ডই তার প্রমাণ। বুধবারই গো-সন্ত্রাস ঠেকাতে আইন তৈরির পরামর্শ দেয় শীর্ষ আদালত। কিন্তু কেন্দ্র নীরব।

গত বছর এপ্রিলে অলওয়ারে পেহলু খানকে পিটিয়ে মেরেছিল স্বঘোষিত গোরক্ষকরা। শুক্রবার রাতে সেখানেই রামগড়ে গরুপাচারকারী সন্দেহে ২৮ বছরের আকবর খানকে প্রাণ দিতে হল। পুলিশ জানাচ্ছে, মৃত্যুকালীন জবানবন্দিতে আকবর বলেন, তিনি এবং আসলাম হরিয়ানার কোলগাঁও গ্রামের বাসিন্দা। দু’টি গরু কিনে শুক্রবার রাত ১২টা নাগাদ বাড়ি ফিরছিলেন। রামগড়ের লালাওয়ান্ডি গ্রামের কাছে তাঁদের উপরে চড়াও হয় পাঁচ জন গ্রামবাসী। কিল-চড়-লাথি-ঘুষির সঙ্গে বাঁশ, লাঠি দিয়ে পেটানো হয় দু’জনকে। ধর্মেন্দ্র যাদব এবং পরমজিৎ সিংহ সর্দার নামে দু’জনকে আপাতত গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে নিন্দায় সরব হয়েছেন। উপযুক্ত পদক্ষেপের আশ্বাসও দিয়েছেন। তবে গুরুগ্রামে এক অনুষ্ঠানে রাজনাথ নিজে আজ স্বীকার করেছেন, ‘‘গোটা দেশেই আইন-শৃঙ্খলার পরিস্থিতি খারাপ হচ্ছে। মানুষ অল্পেতেই অসহিষ্ণু হয়ে পড়ছেন।’’ আবার কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী অর্জুন রাম মেঘওয়াল এর পিছনে বিরোধী ইন্ধনের ইঙ্গিত দিয়ে বলেছেন, ‘‘মোদীর জনপ্রিয়তা যত বাড়বে, ভোটের আগে এ সব আরও হবে।’’

Advertisement

কাল রাতেই ঘটনাটা টুইট করেছিলেন রাহুল গাঁধী। আজ রাজস্থান কংগ্রেসের প্রধান সচিন পায়লট বলেন, ‘‘বিজেপিশাসিত রাজ্যগুলিতে সন্দেহের বশে মানুষকে মারাটা নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে।’’ ২১ জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘কালই প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, যারা পিটিয়ে মানুষ মারছে, তাদের বিরুদ্ধে রাজ্যকে ব্যবস্থা নিতে। আপনি প্রথমে আপনার প্রেসিডেন্টের বলা কন্ট্রোল করুন। আপনার পার্টির নেতাদের বলা কন্ট্রোল করুন, যারা তালিবানি উগ্রপন্থার কথা বলে। প্রতিদিন গণপিটুনি দিয়ে মানুষ মারা হচ্ছে। আজও খুন করা হয়েছে।’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.