Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৬ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

প্রধানমন্ত্রীকে বিঁধতে অস্ত্র জাতীয়তাবাদই

নরেন্দ্র মোদীর ‘অস্ত্রে’ই নরেন্দ্র মোদীকে বিপাকে ফেলতে চাইছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গাঁধী। 

সংবাদ সংস্থা
ধুলে, মুম্বই ০২ মার্চ ২০১৯ ০৩:২৯
মুম্বইয়ের জনসভায় রাহুল গাঁধী। শুক্রবার। ছবি: এপি।

মুম্বইয়ের জনসভায় রাহুল গাঁধী। শুক্রবার। ছবি: এপি।

নরেন্দ্র মোদীর ‘অস্ত্রে’ই নরেন্দ্র মোদীকে বিপাকে ফেলতে চাইছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গাঁধী।

পুলওয়ামা-কাণ্ড এবং পাকিস্তানের মাটিতে ভারতীয় বায়ুসেনার জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংসের পর দেশ জুড়ে জাতীয়তাবাদের হাওয়া। বিরোধীদের অভিযোগ, জাতীয়তাবাদকে পুঁজি করে ভোটে ফায়দা তোলার চেষ্টা করছেন মোদী-অমিত শাহেরা। আজ মহারাষ্ট্রের ধুলে এবং মুম্বইয়ের সভায় জাতীয়তাবাদকেই ‘অস্ত্র’ করে মোদীকে নিশানা করলেন রাহুল। তিনি জানিয়েছেন, মিরাজ ২০০০, সুখোই, মিগ-২১-এর মতো যুদ্ধবিমানগুলি দেশের আকাশ সীমা সামলাচ্ছে এবং বিদেশে গিয়ে জঙ্গি ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দিচ্ছে। ওই যুদ্ধবিমানগুলি তৈরিতে রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা হ্যালের গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে। অথচ প্রধানমন্ত্রী হ্যালকে বাদ দিয়ে রাফাল যুদ্ধবিমান তৈরির বরাত দিচ্ছেন শিল্পপতি অনিল অম্বানীর সংস্থাকে। এর পরই রাহুলের তির্যক মন্তব্য, ‘‘যে শিল্পপতির সংস্থা একটি কাগজের বিমানও তৈরি করতে পারে না, তাঁকে যুদ্ধ বিমানের বরাত পাইয়ে দেওয়া হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর তৎপরতায় ওই শিল্পপতির পকেটে তিরিশ হাজার কোটি টাকা গিয়েছে।’’

জাতীয়তাবাদের আবহে যাতে নোট বাতিল, কৃষক সমস্যার মতো অর্থনৈতিক এবং দৈনন্দিন সমস্যাগুলি চাপা পড়ে না যায়, সে দিকে নজর রয়েছে রাহুলের। মহারাষ্ট্রের সভায় তাঁর অভিযোগ, নোট বাতিলের সময় অনেকেই বিশ্বাস করেছিলেন, কালো টাকার বিরুদ্ধে লড়াই হবে। সাধারণ মানুষ ব্যাঙ্কের সামনে লাইন দিয়েছিলেন। কিন্তু অনিল অম্বানী, বিজয় মাল্য, মেহুল চোক্সী, নীরব মোদীর মতো শিল্পপতিদের ব্যাঙ্কের সামনে লাইনে দাঁড়াতে হয়নি। মোদীকে নিশানা করে কংগ্রেস সভাপতি বলেন, ‘‘মনে রাখবেন, প্রধানমন্ত্রী মেহুল চোক্সীকে বলেন ‘মেহুল ভাই’। আর আপনাদের বলেন ‘মিত্র’।’’

Advertisement

অন্তর্বর্তী বাজেটে ‘প্রধানমন্ত্রী কিসান সম্মান নিধি’ প্রকল্পের ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। ওই প্রকল্পকে কটাক্ষ করে রাহুল জানিয়েছেন, দুই হেক্টরের কম জমি রয়েছে এমন কৃষকদের বছরে ছ’হাজার টাকা করে দেওয়া হবে। কংগ্রেস সভাপতি বলেন, ‘‘২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনে জিতে আমরা কেন্দ্র ক্ষমতাসীন হলে ন্যূনতম রোজগার নিশ্চয়তা’ প্রকল্প চালু করব গরিব মানুষদের জন্য।’’

আজ মুম্বইয়ের সভায় ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ স্লোগান তোলের কংগ্রেস কর্মীরা। যাতে কংগ্রেস সভাপতি দৃশ্যতই উল্লসিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীকে তাঁর কটাক্ষ, ‘‘আমি সাংবাদিক বৈঠক করি। চৌকিদারকে সাংবাদিক বৈঠক করতে দেখেছেন? তিনি শুধু চোর নন, ভিতুও বটে।’’

আরও পড়ুন

Advertisement